চট্টগ্রামে ৩ ধর্ষকের মৃত্যুদণ্ড

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : চট্টগ্রামে এক স্বাস্থ্যকর্মীকে গণধর্ষণের অভিযোগে দায়েরকৃত একটি মামলায় ৩ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সোমবার চট্টগ্রামের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর  বিচারক মো. রেজাউল করিম এ রায় দিয়েছেন। বাঁশখালী উপজেলায় এ ঘটনার একই রায়ে আদালত তাদের প্রত্যেককে এক লক্ষ টাকা করে অর্থদণ্ড দিয়েছেন। 1দণ্ডিত আসামীরা হল, বাঁশখালী উপজেলার দক্ষিণ জলদি গ্রামের মৃত নজির আহমদের ছেলে মো. শফি আলম প্রকাশ শফি, মৃত আহমদ আলীর ছেলে মো. কালু এবং কবির আহমেদের ছেলে মো. আবুল হোসেন। এদের মধ্যে শফি কারাগারে আছেন। বাকি দু’জন পলাতক রয়েছে। মামলার অভিযোগে সাক্ষী হিসেবে রাখা ১১ জনের মধ্যে ৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে সোমবার ট্রাইব্যুনাল এ রায় ঘোষণা করেন। ট্রাইব্যুনাল আসামিদের অর্থদণ্ডের টাকা জেলা কালেক্টরকে সংগ্রহ করে ভিকটিমকে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। আদালত সূত্র জানা গেছে, ২০০৫ সালের ১২ জুন চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার  দক্ষিণ জলদি গ্রামে হিন্দু সম্প্রদায়ের একটি ধর্মীয় অনুষ্ঠান চলছিল। ওই নারীর স্বামীসহ পরিবারের লোকজন অনুষ্ঠানে ব্যস্ত ছিলেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ওই নারীও অনুষ্ঠানে যাচ্ছিলেন। এসময় বাড়ির উত্তর পাশে আগে থেকে অবস্থান নেয়া তিন বখাটে তাকে একা 2পেয়ে নির্জন স্থানে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় ওই নারী বাদি হয়ে ২০০৫ সালের ১৪ জুন বাঁশখালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামরায় পুলিশ তদন্ত শেষে ২০০৫ সালের ২১ আগস্ট আদালতে তিনজনকে অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। ২০১৩ সালের ৫ জুন আদালতে ৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়। রায় ঘোষণার সময় কারাগারে থাকা আসামি শফিকে ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়। রায় ঘোষণার পর তাকে আবার কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন বিচারক। এ বিষয়ে ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পিপি জেসমিন আক্তার জানান, আসামিদের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯(১) ধারায় রাষ্ট্রপক্ষে আনা অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে পারায় আদালত তাদের সর্বোচ্চ সাজা দিয়েছেন। ধর্ষণের শিকার নারী ওই উপজেলায় ব্র্যাকের একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে স্বাস্থ্যকর্মী হিসেবে কাজ করতেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: