চট্টগ্রামে তিনমাসেও খুনীদের গ্রেফতারে ব্যর্থ পুলিশ

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৬, রবিবার: চট্টগ্রামে গাছ কর্তনে বাঁধা দেয়ায় এক গৃহবধূকে জবাই করে হত্যা করার প্রায় তিন মাস অতিবাহিত হতে চললেও প্রকৃত খুনীদের পুলিশ গ্রেফতারে করতে গড়িমসি করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল রোববার চট্টগ্রাম মহানগরীর একটি ব্যবসারকারী সংস্থার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ এনেছেন নিহত ওই গৃহবধূর স্বামী চট্টগ্রাম জেলার রাঙ্গুনিয়া উপজেলার দক্ষিণ নিচিন্তাপুর ফরেস্ট গেইটস্থ হোসনাবাদ ইউনিয়নের হাশেম মাঝির পুত্র মো. ইউসুপ। 4-12-16-sammalan
বিকেল ৫ টায় উক্ত সম্মেলনে তিনি বলেন, প্রতিপক্ষের লোকজন আমাদের জোরপূর্বক গাছ কেটে নেয়ার প্রাক্কালে আমার স্ত্রী বিবি মরিয়ম বাঁধা দেওয়ায় প্রকাশ্য দিবালোকে জবাই করে হত্যা করে, যা প্রকাশ করতে আমার গায়ের লোম শিউরে উঠে। এই লোমহর্ষক হত্যাকান্ডের পর থানা পুলিশকে এত অনুনয় করলেও প্রকৃত আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশ রহাস্যজনক ভূমিকা পালন করছে।
তিনি বলেন, গত ৮ সেপ্টেম্বর আমার একই ইউনিয়নের বাসিন্দা আজিজুল হক দৌলতদ্দিনের পুত্র মনসুর, আজল উদ্দিন সেঙ্গুর পুত্র জব্বর, দুলালের পুত্র কালাইয়া, কামালের পুত্র ইয়াকুব, বাবুল চৌধুরীর পুত্র সোহেল, মুজিবুলের পুত্র আবুল কাশেম, আবদুল মোনাফের পুত্র সোহাগ, দুলা মিয়ার কন্যা তানিয়া, হারুণের স্ত্রী কুলছুম, দেলোয়ার হোসেন বকুলের পুত্র চয়ন ও রাজামিয়ারা মিলে আমার স্ত্রী বিবি মরিয়মকে প্রকাশ্য দিবালোকে দা দিয়ে জবাই করে হত্যা করে। কান্না বিজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, হত্যাকান্ডের পর ওই দিন সন্ধ্যায় স্থানীয় রাঙ্গুনিয়া থানায় ৩০২/৩৪ ধারায় একটি এজাহার দায়ের করি। এজাহার দায়েরের পর রাঙ্গুনিয়া থানার এসপি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে তদন্ত রিপোর্ট পেশ করেন। পরবর্তীতে এই মামলার আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশের গড়িমসি নিয়ে আমরা সদ্য বিদায়ী জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিনের শরাণাপন্ন হলে তিনি এসপিকে দুইবার মোবাইলে উক্ত এজাহারে লিখিত বিষয়টি দেখার জন্য নির্দেশ দেন। এতে এসপি ওসিকে তৎক্ষণাৎ এই খুনের আসামীদের গ্রেফতারের নির্দেশ দেন। তবে দূর্ভাগ্য থানার ওসি আজো অবদি আসামীদের গ্রেফতার করছেননা। তবে এই হত্যা মামালার আসামীদের মধ্যে পুলিশ ৬ জনকে গ্রেফতার করে রাহস্যজন কারণে প্রকৃত চারজন খুনীকে ওই রাতেই ছেড়ে দেয়।
সম্মেলনে বলা হয়, উল্লেখিত ব্যক্তিরা প্রকাশ্য এলাকায় ঘোরাফেরা করছে। আমি ও আমার নিরীহ পরিবারের সদস্যদের মামলা তুলে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। না হলে আমার স্ত্রীর মত আমাদেরও দা‘র তলে পড়তে হবে বলে হুমকি দেয়ায় আতংকের মধ্যে দিনাতিপাত করছি। সম্মেলনে খুনীদের দ্রুত গ্রেফতার করতে আইন শৃংখলা বাহিনীর আশু দৃষ্টি কামনা করছি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নিহত গৃহবধূর পিতা আবুল কাশেম, শশুর আবুল হাশেম মাঝি, ভাই রিয়াজুদ্দিন রিয়াজ, জামাল উদ্দিন, চট্টগ্রাম মহানগর জাতীয় পার্টির যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন জেকি, সাংগঠনিক সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা, প্রতিবেশী মো. লোকমান, মো. মোজাম্মেল, মো. ফারুক, সরোয়ার আলম প্রমূখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*