চট্টগ্রামে আবাসন প্রকল্প বন্ধের দাবীতে স্মারকলিপি ও ১০০ জনের বিবৃতি

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ৮ মে ২০১৭, সোমবার: চট্টগ্রামে গুচ্ছগ্রামের নামে লক্ষ লক্ষ সরকারী টাকা বরাদ্দ নিয়ে লুটপাট করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। খবরে প্রকাশ চট্টগ্রামের কাঞ্চনাবাদ ইউনিয়নের কিছু কু-চক্রী মহল ও স্বার্থানেষী ব্যক্তি বিগত বিএনপি জামাত জোট সরকারের আমলে প্রাকৃতিক সৌর্ন্দয্যমন্ডিত বনায়ন বিনষ্ট করে গুচ্ছ গ্রামের নাম করে লক্ষ লক্ষ সরকারী টাকা বরাদ্দ নিয়ে লুটপাট করেছে, নিজেদের পকেট ভারী করেছে। ইতোমধ্যে আবার কিছু কু-চক্রী মহল সরকারী টাকা আত্মসাৎ করার জন্য গুচ্ছ গ্রামের নাম করে অর্থ আত্মসাৎ করার পরিকল্পনা করছে। গুচ্ছ গ্রাম প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে কাঞ্চননগর এলাকায় বহিরাগত সন্ত্রাসীর আগমন, মদ গাজার অবাদ ব্যবহার, চুরি-ডাকাতি ইয়াবা ব্যবসাসহ নানা ধরনের সমাজ বিরোধী কর্মকান্ড হবে বলে অভিজ্ঞমহল ধারণা করছে। এ ব্যাপারে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসাক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক, চন্দনাইশ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা ভূমিকর্মকর্তা, ইউপি চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে জানানো হয়েছে। চন্দনাইশ উপজেলায় গুচ্ছগ্রাম প্রকল্প বিরোধীদের সাথে উপজেলা প্রশাসনের এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল জব্বার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুৎফর রহমান, উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা মোবারক আলী, মেম্বার আবদুর রশিদ, বেলোয়া খাতুন, মহিম, হাজী আবুল কাসেম, মো. হোসেন, মো. আইয়ুব, মো. ফারুক, মো. কাসেম প্রমুখ। বৈঠকে এ ব্যাপারে অতিসত্বর কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
উল্লেখ্য কাঞ্চননগর গ্রামে গড়ে উঠেছে মেডিকেল কলেজ, নার্সিং কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, গার্মেন্টস পল্লী, রেলওয়ে ওয়ার্কসপ, তাঁত বোর্ড, ইট প্রস্তুতকারী শিল্প। মেডিকেল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে দেশী বিদেশী প্রায় ১০,০০০ ছাত্র-ছাত্রী অধ্যায়নরত। সেহেতু শিক্ষার সার্বিক পরিবেশ রক্ষাসহ ঐতিহ্যবাহী কাঞ্চনগরের বিখ্যাত পেয়ারা বাগান, চা বাগান এবং একটি সুন্দর ও আদর্শ সমাজ রক্ষার স্বার্থে যথা সম্ভব শীঘ্রই প্রকল্পটি বন্ধ করতে হবে। অন্যথায় দেশের একমাত্র সুন্দর একটি গ্রাম বিলুপ্তির পথে ধাবিত হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*