চট্টগ্রামবাসীকে আবুল হাশেম বক্কর’র ঈদ শুভেচ্ছা

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১০ আগস্ট ২০১৯ ইংরেজী, শনিবার: চট্টগ্রামবাসীকে পবিত্র ঈদ উল আযহা উপলক্ষে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর। তিনি বলেন, পবিত্র ঈদ উল আযহা হচ্ছে ত্যাগের একটি অনন্য উদাহারণ। সৎ কাজ করতে গিয়ে যত অত্যাচার নির্যাতন আসুক না কেন তা দীপ্ত মনোবল নিয়ে মোকাবেলা করে এগিয়ে যেতে হবে। বাংলাদেশের জনগণ আজ মহাক্লান্তিকাল অতিক্রম করছে। বর্তমান আওয়ামী সরকারের শত জুলুম নির্যাতনের পরেও মানুষ যে এখনো সৎ সাহস নিয়ে এসবের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছে তা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে ইতিহাসের পাতায়। কারণ দেশের মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়েছে এদেশের জনপ্রিয় নেত্রী বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে জালিমের কারাগার থেকে মুক্ত করার জন্য। এদেশের গণতন্ত্রকামী মানুষের মাঝে ঈদের আনন্দ আসে না। কারণ গণতন্ত্রের প্রতীক বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে, অন্ধকারে একা এই বয়সে দিন যাপন করছে। তারপরও জীবন জীবনের মতো চলছে, চলবে। আমাদের এই সরকারের অন্যায় অত্যাচারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে।

তিনি আরো বলেন, বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার পুরোপুরিভাবে রাষ্ট্র পরিচালনায় ব্যার্থ হয়েছে। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নগরবাসীকে সেবা দিতে ব্যর্থ হয়েছে। ডেঙ্গুর মহামারী আকার ধারণ করলেও তারা পর্যাপ্ত চিকিৎসা দিতে পারেনি। চসিকে পরিচ্ছন্ন কর্মী থাকলেও নগরের সবখানেই এডিস মশার প্রজনন ক্ষেত্র হিসাবে তৈরি হয়েছে। ঢাকায় ডেঙ্গু মোকাবেলার নামে সরকার দলের মন্ত্রী ও মেয়ররা জনগণের সাথে তামাশা করছে। জনগণের ভোটে নির্বাচিত না হওয়ার কারণে জনগণের প্রতি সরকারের যে দায়িত্ব থাকার কথা সেই দায়িত্ব এ সরকার পালন করছে না। তারা জানে, তারা ভোটে নির্বাচিত হয়নি। যার কারণে মন্ত্রী হয়েও পাগলের মতো বলছেন, দেশ উন্নত হয়েছে বলে ডেঙ্গু রোগ হচ্ছে। ভোটারবিহীন মন্ত্রীদের থেকে জনগণ এর চেয়ে বেশি কিছু আশা করে না।

আমাদের দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব, ভোটের অধিকার, গণতন্ত্রের অধিকার, নিরাপদ বেঁেচ থাকার অধিকারের জন্য এই সরকারের বিরুদ্ধে জেগে উঠতে হবে। ঐক্যবদ্ধভাবে দেশের মানুষকে বাঁচাতে একত্রিত হতে হবে। তাহলেই গণবিস্ফোরণের মাধ্যমে এ সরকার ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হবে।

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর জমিয়াতুল ফালাহ মসজিদে ঈদুল আযহার নামাজ আদায় করবেন। ঈদুল আযহার নামাজ শেষে উনার এনায়েত বাজার বাটালী রোড়স্থ বাসভবনে কোরবানী করবেন। ঈদের পরের দিন সকাল থেকে নিজ বাসভবনে দলীয় নেতাকর্মী ও সর্বস্তরের জনসাধারণের সাথে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*