“গোর্খাল্যান্ড” ভারতের ৩০ তম রাজ্য

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৩ জুলাই ২০১৭, রবিবার: ‘দার্জিলিং ভারতের ৩০তম রাজ্য হতে চলেছে’ এ মর্মে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের উত্তরবঙ্গের এক বিজেপি নেতার হোয়াটসঅ্যাপ পোস্টে তুলকালাম সৃষ্টি হয়েছে।
ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার এখন পর্যন্ত পাহাড়ের রাজনৈতিক দলগুলোর গোর্খাল্যান্ড আন্দোলনের বিষয়ে কোনো কথা বলেনি। এ কারণেই এ নিয়ে চাঞ্চল্য।
উত্তরবঙ্গের বিজেপির ওই নেতা হচ্ছেন শিলিগুড়ির বিজেপির সাংগঠনিক জেলা সহসভাপতি নন্দন দাস। হোয়াটসঅ্যাপ পোস্টে তিনি বলেছেন, ‘দেশের ৩০তম রাজ্য হতে চলেছে গোর্খাল্যান্ড। প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’
নন্দন দাসের এ পোস্টের পর চারদিকে শোরগোল পড়ে গেছে। দল থেকে কারণ দর্শাও নোটিশ দেওয়া হয়েছে তাঁকে। তিনি কেন এ ধরনের কাজ করলেন তা দলের শীর্ষ নেতৃত্ব জানতে চেয়েছে।
নন্দন দাস জানিয়েছেন, তিনি অন্য একজনের মেসেজ পেয়ে তা যাচাই না করে হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে ছেড়ে দিয়েছেন।
এদিকে পাহাড়ে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ৩৮তম দিনেও আগুন জ্বলেছে। গতকাল শনিবার ভোররাতে জলঢাকা থানার কাছে পুলিশের চৌকি পুড়িয়ে দিয়েছে একদল মোর্চা সমর্থক। পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে কার্শিয়াঙের হেরিটেজ রাজ রাজেশ্বরী বেঙ্গলি কমিউনিটি হল।
দার্জিলিংয়ের স্কুল-কলেজ এখনো বন্ধ। চা-বাগানগুলো বন্ধ রয়েছে ৪০ দিন ধরে। দার্জিলিং, কালিম্পং, মিরিক, কার্শিয়াঙে ১৩ মোর্চা সমর্থক আমরণ অনশনে বসেছেন।
এদিকে জুম্মাবার রাতে পুলবাজার থানার মেচিতে একটি বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রতিষ্ঠানের গুদাম থেকে জিলোটিন লুট করেছে দুষ্কৃতকারীরা। পুলিশ আশঙ্কা করছে, এগুলোর সাহায্যে নাশকতা চালানো হতে পারে। পাহাড়ের বিভিন্ন জায়গায় সিআরপিএফ জওয়ানদের কড়া পাহারা রয়েছে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: