গাড়িতে খালেদা জিয়া : যে কোনো সময় বের হবেন

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : গণতন্ত্র হত্যা দিবস উপলক্ষে ২০ দলের ডাকা আজকের সমাবেশের উদ্দেশে বের হতে প্রস্তুত রাখা হয়েছে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার গাড়ি। একই সঙ্গে প্রস্তুত বিএনপি চেয়ারপারসনের নিরাপত্তারক্ষী সিএসএফও। তবে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ের সামনে ইতিমধ্যে ৮ স্তর বিশিষ্ট নিরাপত্তা বেষ্টনী রাখা হয়েছে। সিএসএফ গেইট খুলতে বললেও এখনো গুলশান কার্যালয়ের গেট খোলা হয়নি।000 খালেদার কার্যালয়ে ৩ স্তরের ব্যারিকেড, ২৪ ট্রাক বালুভর্তি ট্রাক ও তিন স্তরের ব্যারিকেডে অবরুদ্ধ রয়েছে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়। এই অবরুদ্ধ কার্যালয়েই দ্বিতীয় দিনের মতো রাত যাপন করেছেন খালেদা জিয়া। দুপুর ১২টায় খালেদা জিয়া বের হওয়ার চেষ্টা করতে পারেন বলে জানা গেছে। চেয়ারপারসন কার্যালয়ের সামনে গতকাল রোববার রাত পর্যন্ত ছয়টি ট্রাক থাকলেও সোমবার সকালে ১২টি ট্রাক দেখা গেছে। কার্যালয়ের আশপাশের সড়কে আরো অন্তত ১২টি ট্রাক রয়েছে। কার্যালয়ের সামনে রয়েছে পুলিশের তিন স্তরের ব্যারিকেড। এদিকে রোববার বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে দলের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান মহিলাদলের সভানেত্রী নুরে আরা সাফা, সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা, কৃষকদল নেতা শাহজাহান মিয়া সম্রাটসহ মহিলাদলের আরো প্রায় সাত/ আটজন কার্যালয়ে রাত যাপন করেন। বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘ ‘গণতন্ত্র হত্যা’ দিবসের সারাদেশের পাশাপাশি রাজধানী ঢাকায় জনসভার কর্মসূচি হবে। সাধারণত জনসভা হয় বিকালে। সে অনুযায়ী দুপুরের পরপরই যেকোনো সময়েই বেগম খালেদা জিয়া কার্যালয় থেকে বেরুবেন।’’ খালেদা জিয়ার গন্তব্য কোথায় জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘সেখানেই লোকসমাগম হবে সেখানেই তিনি যাবেন। তবে তা এই মুহূর্তে বলা যাচ্ছে না।’’ এদিকে সকাল ১০টার দিকে গুলশানের বাসা থেকে খালেদা জিয়ার সকালের নাস্তা পাউরুটি, কলা-ডিম-জুস প্রভৃতি খাবার নিযে আসা হয়। বেগম জিয়া সকাল সাড়ে ৯টায় ঘুম থেকে উঠেছেন বলে মহিলা দলের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে। সকালেও খালেদা জিয়া কয়েকজন সিনিয়র নেতার সঙ্গে কথা বলে আজকের কর্মসূচির বিষয়ে কথা বলেছেন।Untitled-2-22-600x400 সারা দেশের সর্বশেষ পরিস্থিতিও তাকে জানানো হচ্ছে। এ দিকে খালেদা জিয়া যাতে তার কার্যালয়ের বাইরে যেতে না পারেন সেজন্য প্রধান গেইটের সামনে নতুনভাবে তিনস্তরের নিরাপত্তা বেষ্টনী দেয়া হয়েছে। গেইটের সামনে প্রথমে মহিলা পুলিশ দল, এরপর গোয়েন্দা পুলিশ এবং সর্বশেষ ডিএমপি পুলিশের সদস্যদের দিয়ে এই নিরাপত্তা বেষ্টনী গড়ে তোলা হয়েছে। পাশাপাশি গেইটের ডানদিকে ইটভর্তি দুইটি ট্রাক সরিয়ে সেখান পুলিশের বড় লরি kaসড়কে মাঝখানে আড়াআড়িভাবে রেখে রাস্তা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। গেইটের ডানদিকে ১০ গজ দূরে বালু ভর্তি দুইটি ট্রাক আড়াআড়িভাবে রাখা হয়েছে। গুলশান কার্যালযের ৮৬ নং সড়কের মোট ১১ টি বালু ও ইট ভর্তি ট্রাক রাখা হয়েছে। এছাড়া পুলিশের দুইটি লরি, একটি পিকভ্যান রয়েছে। এছাড়া ৮৬ নং সড়ক মোড়ে জলকামান, সাঁজোয়া যানও রয়েছে। দিনের প্রথম প্রহরে ইট-বালু-ইটের শুড়কি ভর্তি ট্রাকের সংখ্যা ছিলো ৬টা। ভোরে এই সংখ্যা বেড়ে ১১ তে উন্নীত করা হয়। বালু ভর্তি একটি ট্রাকের ড্রাইভার করিম সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘রাতে তারা বনানী দিকে যাচ্ছিলেন। সেখান থেকে পুলিশের সার্জেন্ট গাড়িটি এখানে নিয়ে যেতে বলেছে। আমি অন্যান্য ট্রাকের সঙ্গে এখানে এসেছি।’’ এ ব্যাপারে পুলিশের কোনো কর্মকর্তা কিছু বলতে অপরাগতা প্রকাশ করেন। ৮৬ সড়কের রোববার থেকে যানচলাচল বন্ধ রয়েছে। এবং কি সাধারণ মানুষজনের প্রবেশ এই পথে নিষিদ্ধ। সকালে বিচারপতি সাহাবুদ্দিন পার্কে প্রাত:ভ্রমনে আসা জার্মান দূতাবাসের ভারপ্রাপ্ত প্রধান এই সড়ক দিয়ে বাসা ফিরতে গেলে পুলিশ তাকে ভিন্ন পথ দেখিয়ে দেয়।kha2 বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গত শনিবার রাত থেকে গুলশান কার্যালয়ে অবরুদ্ধ হয়ে আছেন। তার সঙ্গে এই কার্যালয়ে দলের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল কাইয়ুম, প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান, বিশেষ সহকারি শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, মহিলা দলের সভানেত্রী নুরে আরা সাফা, সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা, সাবেক সাংসদ রেহানা আখতার রানু, নীলুফার চৌধুরী মনি, রাশেদা বেগম হীরা, সৈয়দা আসিফা আশরাফি পাপিয়া, সুলতানা আহমেদ, ফরিদা ইয়াসমীন প্রমূখ নেতারা রয়েছেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: