ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর নামে বিমানবন্দর

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৪ জুলাই: ইউসেবিও, লুই ফিগোর মতো কিংবদন্তিরা পারেননি। ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো মিটিয়েছেন সেই আক্ষেপ। তাঁর নেতৃত্বে এবার ইউরোর স্বাদ পেয়েছে পর্তুগাল। এটি দেশটির ইতিহাসে মর্যাদার প্রথম কোনো শিরোপা। এমন অবদানের সম্মান পেলেন পর্তুগিজ যুবরাজ।
নিজের শহর মাদেইরার বিমানবন্দরের নাম বদলে রাখা হয়েছে তাঁর নামে। একই দিনে মাদেইরায় নিজের নামের হোটেল ‘সিআরসেভেন’-এর উদ্বোধনও করলেন ‘সিআরসেভেন’।R
এমনিতে স্টেডিয়াম, বড় সড়ক বা বিমানবন্দরের নাম কিংবদন্তিদের নামেই হয়ে থাকে। কিন্তু রোনালদোর মতো মাত্র ৩১ বছর বয়সে সেই সম্মান পেয়েছেন কয়জন?
তাই অভিভূত রোনালদো, ‘এমন সম্মানে গর্বিত আমি।’ মাদেইরার ফুনচালের সান্তা কাতারিনা বিমানবন্দরটির নাম পরিবর্তন করে রাখা হলো ‘সিআরসেভেন’ এর নামে। প্রাদেশিক সরকারের প্রধান মিগুলে আলবুকার্ক সেই ঘোষণা দিতে পেরে সম্মানিত বোধ করছেন নিজেও, ‘রোনালদো পর্তুগালের কিংবদন্তি।
তাঁর নামে বিমানবন্দরটির নামকরণ করতে পারাটা গর্বের। আমাদের শহরকে সারা বিশ্বের কাছে পরিচিত করেছে ও।’ রোনালদো উচ্ছ্বসিত নিজের হোটেল ব্যবসা নিয়েও। পেসতানা গ্রুপের সঙ্গে যৌথভাবে করা হোটেলটিতে আছে ৪৯টি কক্ষ।
এর ২৫টি ‘সিআরসেভেন টাইপ রুম’ আর ২৩টি ‘সুপিরিয়র সিআরসেভেন’। অন্য রুমটি বিশেষ স্যুইট। হোটেল ব্যবসায় জড়ানোটা অবশ্য অনেক দিনের স্বপ্ন তাঁর। গত বছরই দিয়েছিলেন সেই ঘোষণা।
অবশেষে নিজের শহরে প্রথম হোটেলটি করতে পারায় উচ্ছ্বসিত তিনি, ‘বিশ্বাসই হচ্ছে না ৩১ বছর বয়সে হোটেল ব্যবসায়ী হয়ে গেছি। এটা একেবারেই নতুন যুগে পা রাখা। নিজের শহরে প্রথম হোটেল করতে পারাটা সন্তুষ্টিরও।’ এই বছরের শেষ দিকে লিসবনে চালু হবে তাঁর দ্বিতীয় হোটেল। নিউ ইয়র্ক আর মাদ্রিদ শহরেও করবেন আরো দুটি হোটেল। ‘ব্যবসায়িক’ ব্যস্ততার দিনেও অবশ্য কথা বলতে হলো ফুটবল নিয়ে।
নিজের শহরে সংবাদ সম্মেলনে নিশ্চিত করলেন ইউরোপিয়ান সুপার কাপে খেলতে না পারার কথা, ‘ফাইনাল কে না খেলতে চায়। কিন্তু আমার চোটের যা অবস্থা তাতে সেভিয়ার সঙ্গে ম্যাচটি খেলা সম্ভব নয়। এই ম্যাচের পরের দিনই যোগ দেব রিয়ালের অনুশীলনে।’
ইউরোয় সবচেয়ে বেশি ৬ গোল করা আন্তোয়ান গ্রিয়েজমান কিংবা বার্সেলোনার তারকা নেইমার ব্যালন ডি’অর দেখছেন রোনালদোর হাতে। রোনালদোও স্বপ্ন দেখছেন চতুর্থ ব্যালন ডি’অরের, ‘এটা আমার হাতে নেই। তবে জানি চ্যাম্পিয়নস লিগ আর ইউরো জেতার পর স্বাভাবিকভাবে ভালো অবস্থানে আছি।’
বিমানবন্দরের নতুন নামকরণ আর হোটেল উদ্বোধন শেষে রোনালদো গিয়েছিলেন তাঁর নামের জাদুঘরেও। নতুন কলেবরে সাজানো জাদুঘরে গত পরশু ছিল উপচে পড়া ভিড়। রোনালদো নিজে সেখানে যাওয়ায় তাঁর সঙ্গে সেলফি তুলতে আর অটোগ্রাফ নিতে ছিল ভক্তদের দীর্ঘ সারিও।

Leave a Reply

%d bloggers like this: