কুষ্টিয়ায় কথিত “বন্দুকযুদ্ধে” নিহত ১

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : কুষ্টিয়ার মিরপুরে পুলিশের সঙ্গে কথিত “বন্দুকযুদ্ধে” ডাকাত দলের নেতা মিলন ওরফে ডাটা মিলন (৩২) নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় এস আই শহিদুল ও কনষ্টেবল মাইনুল ইসলাম আহত হয়েছে। সোমবার রাত আড়াইটার দিকে কুষ্টিয়া-মিরপুর সড়কের পাশে চুনিয়াপাড়া মাঠে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। তবে নিহত মিলনের স্ত্রী আফরোজা জানান, তার স্বামী Bandujuddaএকজন ভাল মানুষ। পুলিশ তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে বন্দুকযুদ্ধের নামে গুলি করে হত্যা করেছে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে গাছকাটা করাত, ৩টি রাম দা ও ১টি চাকু উদ্ধার করেছে বলে দাবি করেছে পুলিশ। মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী জালাল উদ্দিন জানান, সোমবার দিবাগত রাতে মিরপুর উপজেলার বারুইপাড়া ইউনিয়নের ওই নির্জন মাঠের কাছে গাছ কেটে সড়কের উপর ফেলে ডাকাতির চেষ্টা চালায় ডাকাতদল। এমন সংবাদে টহল পুলিশ নিয়ে তিনি সেখানে অভিযানে যান। ঘটনাস্থলে পৌঁছালে ডাকাত দলের সদস্যরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এসময় পুলিশও পাল্টা ১৮ রাউন্ড গুলি চালায়। বন্দুকযুদ্ধের এক পর্যায়ে ডাকাত দলের সদস্যরা পালিয়ে যায়। পুলিশ এলাকাবাসীর সহায়তায় ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় মিলনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ওই সময় ঘটনাস্থল থেকে গাছ কাটার একটি করাত ও ৩টি ধারালো রাম দা এবং ১টি চাকু উদ্ধার হয়। পরে ময়না তদন্তের জন্য নিহতের লাশ কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ জানায়, নিহত ডাকাত দলের নেতা মিলন ওরফে ডাটা মিলনের বিরুদ্ধে মিরপুর থানায় হত্যা ও অস্ত্রসহ ৩টি মামলা রয়েছে। পার্শ্ববর্তী থানাগুলোতেও তার বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে। সে মিরপুরের ধুবইল ইউনিয়নের লক্ষিধড়দিয়া গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে। নিহত মিলনের শ্বশুড় আযম জানান, আমার মেয়ের জামাই আগে খারাপ লোকদের সঙ্গে চলাফেরা করতো। মিলন এখন ভাল হয়ে গেছে। এলাকায় ব্যবসা করে। বাড়ির পাশে একট ওরশ হচ্ছিল। ওই ওরশ থেকে পুলিশ তাকে তুলে নিয়ে যায়। এসময় তার সঙ্গে ২৫ হাজার টাকা ও ১টি মোবাইল ছিল। সূত্র : শীর্ষ নিউজ ডটকম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*