কুমিল্লায় বিএনপি-আ’লীগ সংঘর্ষ

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : কুমিল্লা নগরীর কান্দিরপাড় এলাকায় বিএনপি-আওয়ামী লীগে সংঘর্ষে ৪ পুলিশ সদস্যসহ ২০ জন আহত হয়েছে। এদিকে দু’গ্র“পের সংঘর্ষে ছাত্রদলের ৩ জন গুলিবিদ্ধসহ বিএনপির ১৬ জন আহত হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে কান্দিরপাড়ে অবস্থিত জেলা বিএনপির কার্যালয় ভাংচুর ও একটি মোটর সাইকেল পুড়িয়ে দেয় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।21-bnp রোববার বেলা পৌনে ১২টার দিকে আধা ঘণ্টাব্যাপী এ সংঘর্ষ শুরু হয়। দু’গ্র“পের সংঘর্ষে শতাধিক ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে। উভয় গ্র“পই ব্যাপক গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটায়। এদিকে, সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে বিএনপি কর্মীদের ছোড়া ইট-পাটকেলের আঘাতে আহত হয়েছেন ৪ পুলিশ সদস্য। আহতরা হলেন, কোতোয়ালি থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) শামসুজ্জামান, উপ-পরিদর্শক (এসআই) নাসির, সেকেন্ড অফিসার সালাউদ্দিন ও কনস্টেবল আনোয়ার। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। বিএনপির আহত নেতাকর্মীদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেয় হচ্ছে। কোতোয়ালি থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) শামসুজ্জামান জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে প্রায় ৭০/৮০ রাউন্ড রাবার বুলেট ও ২০টি টিয়ারশেল নিক্ষেপ করা হয়েছে। পুলিশ প্রায় শতাধিক রাবার বুলেট ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। এতে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যরাও পুলিশকে সহায়তা করে। এতে সংবাদকর্মী, পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) কনস্টেবল আমিনুল, কোতয়ালি বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শফিউল আলম রায়হান, কোতোয়ালি যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক মমিনুল ইসলাম মমিন ও ছাত্রদল নেতা সোহাগ আহত হয়। এদের সবাইকে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়। আহত যুবদল নেতা মোমেনসহ দু’জন সদর হাসপাতালে ও দু’জন কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। বাকিরা বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। স্থানীয়রা জানায়, সকাল ১০টার দিকে কান্দিরপাড়ের দলীয় কার্যালয় থেকে বিএনপি ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা মিছিল বের করে। এসময় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাদের ধাওয়া করলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। পরে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বেলা সাড়ে ১১টা বিএনপি নেতাকর্মীরা রাণীর দিঘীরপাড়ে, আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা পূবালী চত্বর ও কান্দিরপাড়ে এবং পুলিশ বিএনপি কার্যালয়ের সামনে অবস্থান করে। সময় টিভির কুমিল্লা প্রতিনিধি বাহার রায়হান জানান, ছবি তুলতে গেলে তার ওপর হামলা করা হয়। এ সময় তার ক্যামেরাটি ভেঙে ফেলা হয়। কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক মিয়া জানান, সকালে হরতাল চলাকালে বিএনপি নেতাদের একটি দল নজরুল এভিনিউতে কর ভবনের সামনে অবস্থান করছিল। এ সময় ছাত্রলীগের একটি গ্র“প এসে তাদের ওপর হামলা চালায়। তাদের মধ্যে দুজনকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয়েছে। তাদের কুমিল্লা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি আরও বলেন-এ ছাড়া মহানগরীর কান্দিরপাড় বিএনপি অফিসের সামনে অবস্থানরত নেতা-কর্মীদের ওপরও হামলা করেছে আওয়ামী লীগ। এ বিষয়ে বক্তব্য নেওয়ার চেষ্টা করে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের কোনো নেতাকে পাওয়া যায়নি। কুমিল্লা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনজুরুল আলম জানান- আমাদের একজন কনস্টেবলকে কুপিয়ে আহত করা হয়েছে। তাকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। কুমিল্লা কোতয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খোরশেদ আলম জানান কান্দিরপাড়ে দুই পক্ষের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়েছে। পুলিশকে লক্ষ্য করে মিছিল থেকে ইটপাটকেলে ও ককটেল নিক্ষেপ করা হয়। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ২৫-৩০ রাউণ্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এ ঘটনার পর কান্দিরপাড় এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ, বিজিবি ও র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে। এ ছাড়া নগরী জুড়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর টহল জোরদার করা হয়েছে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: