কাপ্তাই ইউপিতে শেষ হাঁসি কার?

কবির হোসেন, কাপ্তাই: বাংলাদেশের সর্ব বৃহৎ জেলা রাঙ্গামাটি উক্ত জেলাটি ১০টি উপজেলা নিয়ে গঠিত হয়েছে। আর সকল উপজেলার মধ্যে অতি গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা কাপ্তাই। এ উপজেলায় রয়েছে কর্ণফুলী পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্র,কর্ণফুলী পেপার মিলস,কারিগরি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, শহীদ মোয়াজ্জম নৌ ঘাঁটি, বৃহৎ বৌদ্ব মন্দির,বৃহৎ বিএফ আইডি সি করাত কলসহ Charmen-candetসরকারী-আধাসরকারী বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান এখানে থাকায় এ উপজেলাটি দেশব্যাপী পরিচিতি একটি উপজেলা। আগামী ৪জুন এখানে ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়াকে কেন্দ্র করে ৪টি ইউপিতে চলছে ব্যাপক-প্রচার প্রচারণা। ইতি মধ্যে সকল প্রার্থীরা মসজিদ দোয়া যাচেছ। এবং ঘরে,ঘরে রাত-দিন গনসংযোগ করে চলছে। অনেক প্রার্থীরা নিজ ভোট প্রয়োগ করতে পাড়বে কিনা তা নিয়ে সংশন রয়েয়ে বলে প্রার্থীরা অভিযোগ করেন। তবে প্রশাসনের পক্ষ হতে বলা হয়েছে পার্বত্য জেলার প্রতিটি ইউপিতে অবাদ সুষ্ঠ নির্বাচন উপহার দেওয়া হবে। কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার চেষ্ঠা করা হলে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে নির্বাচন অফিস সুত্রে খবর পাওয়া যায়। কাপ্তাই উপজেলার ৫টি ইউপির মধ্যে একটি ইউপি নির্বাচন সিমানা জটিলতা সংক্রান্ত কারনে স্থগিত রয়েছে। আর ৪টি ইউপিতে নির্বাচন অনুষ্টিত হবে। এর মধ্যে প্রার্থীরা তাঁদের হিসাব-নিকাশ কষে নিচেছ কি ভাবে নির্বাচিত হওয়া যাবে। আবার অভিযোগ পাওয়া যায় অনেক প্রার্থীর পোষ্ঠার-ব্যানার ছিড়ে দিচেছ। নিজ ক্ষতা বলে বাহু বলে। এবার
কাপ্তাই উপজেলার ৪টি ইউপিতে প্রার্থী হল রাইখালী মংক্য মারমা প্রতীক (নৌকা),জাহাঙ্গীর তালুকদার( ধানের শীষ) স্বতন্ত্র প্রাথী সাইহ্লামং মারমা,চিংমরম ইউপিতে প্রার্থী তিন জন এর মধ্যে থুইচাইপ্র“ মারমা(নৌকা),উথাইমং মারমা(ধানের শীর্ষ) স্বতন্ত্র প্রার্থী খ্যাইস্যা অং মারমা(বর্তমান চেয়াারম্যান) ওয়া¹া ইউপিতে ৫জন চেয়ারাম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বান্দিতা করছে এর মধ্যে চিরঞ্জিত তংচঙ্গ্যা(নৌকা),জাফর আহমদ স্বপন(ধানের শীষ),বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী আপাই মারমা, সুনিল তংচঙ্গ্যা (স্বতন্ত্র) এবং বর্তমান চেয়াারম্যান অহ্লাচিং মারমা (স্বতন্ত্র) এবং সব চেয়ে অতিগুরুত্ব পূর্ণ এলাকা হল ৪নং কাপ্তাই ইউপি এর মধ্যে প্রার্থী হল শুধু সরকারীদল- ও বিরোধীদল প্রকৌশলী আবদুল লতিফ(বর্তমান চেয়ারম্যান) নৌকা প্রতিক আর বিরোধী দলের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মহির উদ্দিন(ধানের শীষ) প্রতিক নিয়ে দু’জনের মধ্যে হাড্ডা-হাড্ডি লড়াই হবে। উপজেলার মধ্যে সকলেই তাকিয়ে আছে শুধুমাত্র কাপ্তাই ৪নং ইউপির দিকে কে বিজয়ী হয় । এদিকে কাপ্তাই র্বতমান ইউপি চেয়ারম্যান প্রকৌশলী আবদুল লতিফ বলেন,আমাকে দলের পক্ষে হতে প্রতিক দেওয়া হয়েছে নৌকা। আমি অবাদ সুষ্ঠ নির্বাচনের মধ্যেমে নির্বাচন করতে চাই। আমি ইউপিতে থাকা কালিন কাপ্তাইয়ের প্রতিটি ওয়ার্ডে উন্নয়নের ছোয়া লেগেছে। এমন কোন স্থান নেই যেখানে উন্নয়ন হয়নি। স্কুল,মাদ্রাসা,শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শিড়ি নির্মান,চলাচলের রাস্থা,কালর্ভাট,ব্রীজ,উন্নয়ন করা হয়েছে।
তিনি বলেন আল-আমিন দাখিল মাদ্রাসার কেন্দ্র করা হয়েছে। কাপ্তাই ইউপিতে ৮০ শতভাগ বিশুদ্ব পানির ব্যস্থা করা হয়েছে। তিন হাজার বেকার যুবকে-যুবতীকে বিনামূল্যে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। জেলার মধ্যে শ্রেষ্ট তথ্যকেন্দ্র হিসাবে সকলকে সেবা প্রদান করা হচেছ। দলমল নির্বিশেষে সকলের কাজ করে চলছিএবং সমাজকে মাদকমুক্ত ও সন্ত্রাস মুক্ত রেখেছি। এদিকে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মহির উদ্দিন (ধানের শীর্ষ) নিজে ইস্তেহার প্রকাশ করেছে তিনি ইস্তেহারে বলেন ২০০৩-২০১১সাল দায়িত্ব থাকা কালিন নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেছি। ২০০৮সালে কর্মদক্ষাতার উপর জেলার শ্রেষ্ট চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছি এবং জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত হয়েছি। এলাকার জীবন-জীবিকার জন্য ব্যাপক উন্নয়ন করা হয়েছে। আগামীতে নির্বাচিত হলে জনগনের প্রাণের দাবী কাপ্তাইকে মৌজায় বাস্তবায়ন করা হবে। বেকার দুর করা হবে,রাস্তাঘাট,মসজিদ,মন্দির, ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান উন্নয়ন করা হবে। আগামী ৪ জুন নির্বাচিত করা হলে সুষম,বন্টন, ন্যায় বিচার ও অত্র ইউনিয়নকে দূনীর্র্তি মুক্ত করা হবে। এবং আইশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ও মাদকমুক্ত সমাজ গঠন করা হবে বলে উল্লেখ করেন। তবে সকলে তাকিয়ে আছে শেষ হাঁসি কে হাঁসবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*