কমার্স ব্যাংকের চেয়ারম্যান পদ ছেড়ে ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক হচ্ছেন সাবেক সচিব

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ডিসেম্বর ২৯, ২০১৬, বৃহস্পতিবার: বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকের চেয়ারম্যান পদ ছেড়ে ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক হচ্ছেন সাবেক সচিব আরাস্তুখান। ১৫ ডিসেম্বর ইসলামী ব্যাংকের জরুরি পর্ষদ সভায় তাঁকে পরিচালক হিসেবে নিয়োগের সিদ্ধান্ত হয়। আরমাডা স্পিনিং মিলস নামে একটি প্রতিষ্ঠান তাঁকে পরিচালক পদে মনোনয়ন দিয়েছে। ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক পদে নিয়োগের অনুমোদন পেলে আরাস্তু খান কমার্স ব্যাংকের চেয়ারম্যান পদ ছাড়তে রাজি হয়েছেন। তিনি ওই ব্যাংকে সরকার মনোনীত চেয়ারম্যান।
জানা গেছে, ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক পদে আরাস্তু খানের নিয়োগের বিষয়টি বর্তমানে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে।
সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে চেয়ারম্যান পদ ছেড়ে কার প্রতিনিধি হিসেবে ইসলামী ব্যাংকে যাচ্ছেন? এ প্রশ্নের জবাব এড়িয়ে আরাস্তু খান প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমি এখনো কমার্স ব্যাংকেই দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি। বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদনের পরই ইসলামী ব্যাংকে যাওয়ার বিষয়টি চূড়ান্ত করা হবে। এখনো বলার মতো কোনো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি।’ এ সময় তাঁর কাছে তাঁকে মনোনয়ন দানকারী আরমাডা স্পিনিং মিলস সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি প্রতিষ্ঠানটি সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু জানাতে পারেননি।
চলতি বছরের জানুয়ারিতে কমার্স ব্যাংকের চেয়ারম্যান হিসেবে আরাস্তু খানকে নিয়োগ দেয় সরকার। ব্যাংকটি সরকারি-বেসরকারি খাতের ব্যাংক হিসেবে পরিচিত। ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে তাঁর মেয়াদ শেষ হবে।
বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নির্দেশনা অনুযায়ী, শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোনো প্রতিষ্ঠানের পরিচালক হতে হলে ওই প্রতিষ্ঠানের পরিশোধিত মূলধনের কমপক্ষে ২ শতাংশ শেয়ার থাকা বাধ্যতামূলক। সেই হিসাবে আরাস্তু খান যে প্রতিষ্ঠানটির প্রতিনিধি হিসেবে ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক হতে যাচ্ছেন, সেই প্রতিষ্ঠানের হাতে ইসলামী ব্যাংকের ২ শতাংশের শেয়ার থাকতে হবে। গত এক মাসে বাজারে ইসলামী ব্যাংকের শেয়ারের যে গড় দাম তাতে কোম্পানিটির ২ শতাংশ শেয়ারের বাজারমূল্য প্রায় ১০০ কোটি টাকা।
জানা গেছে, বস্ত্র খাতের স্বল্প পরিচিত প্রতিষ্ঠান আরমাডা স্পিনিং মিলস গত কয়েক মাসে শেয়ারবাজার থেকে ইসলামী ব্যাংকের ২ শতাংশের বেশি শেয়ার কিনেছে। নথিপত্রে এ আরমাডা স্পিনিং মিলের কর্ণধার হিসেবে জনৈক মো. আরশেদের নাম উল্লেখ রয়েছে। জানা গেছে, মূলত আরাস্তু খানকে পরিচালক নিয়োগ দিতেই ১৫ ডিসেম্বর ইসলামী ব্যাংকের জরুরি পর্ষদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। পরিচালনা পর্ষদের সিদ্ধান্তের পর এ নিয়োগ অনুমোদনের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকে পাঠানো হয়েছে।
যোগাযোগ করা হলে ইসলামী ব্যাংকের চেয়ারম্যান মুস্তাফা আনোয়ার প্রথম আলোকে বলেন, ‘ব্যাংকের শেয়ার কিনে একটা প্রতিষ্ঠান পর্ষদে পরিচালক দিতে চেয়েছে। পর্ষদের সভায় তা অনুমোদন হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন পেলে এ নিয়োগ চূড়ান্ত হবে এবং তিনি সভায় অংশ নেবেন।’
বর্তমানে ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদে ১৮ জন পরিচালক। এর মধ্যে আটজনই স্বতন্ত্র পরিচালক। তাঁরাই মূলত ব্যাংকটি পরিচালনায় মূল ভূমিকা রাখছেন। শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে পরিচালনা পর্ষদে আছেন আল রাজী, ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক, ইবনে সিনা ও সরকারি খাতের ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশের প্রতিনিধি। এ ছাড়া সাম্প্রতিক সময়ে এবিসি ভেঞ্চার, গ্র্যান্ড বিজনেস লিমিটেড, এক্সেল ডাইং অ্যান্ড প্রিন্টিং, প্লাটিনাম এনডেভরস, প্যারাডাইস ইন্টারন্যাশনাল ও ব্লু ইন্টারন্যাশনালের প্রতিনিধি ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদে যুক্ত হয়েছেন। স্বতন্ত্র পরিচালকেরা হলেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক সামীম মোহাম্মদ আফজাল, পূবালী ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হেলাল আহমেদ চৌধুরী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দ আহসানুল আলম, ইসলামী ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম আজিজুল হক, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের সাবেক এমডি জিল্লুর রহমান, পুলিশের সাবেক অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক আবদুল মাবুদ, আইনজীবী বোরহান উদ্দিন আহমেদ ও বেক্সিমকো গ্রুপের প্রতিষ্ঠান শাইনপুকুর সিরামিক ও নিউ ঢাকা ইন্ডাস্ট্রিজের প্রধান নির্বাহী মোহাম্মদ হুটমায়ূন কবির।

Leave a Reply

%d bloggers like this: