কক্সবাজারের ইউরিয়া সারের কৃত্রিম সংকট

অজিত কুমার দাশ হিমু, কক্সবাজার : কক্সবাজারের উখিয়ায় বিআইসি কর্তৃক অনুমোদিত সরকারী ডিলাররা সারের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে বুরো মৌসুমে কৃষকের কাছে চড়া দামে ইউরিয়া (চিকনদানা) সার বিক্রি করছে বলে গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। ফলে কৃষকদের মাঝে চরম Sar-13-02-2015অসন্তোষ সহ ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এ কৃত্রিম সার সংকটের কারণে ব্যহত হচ্ছে বুরো চাষাবাদ। উখিয়া কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় ১০ জন সরকারী সার ডিলার রয়েছে। চলতি ফেব্র“য়ারী মাসে কৃষি মন্ত্রণালয় ৬শ মেঃটন ইউরিয়া সার বরাদ্ধ প্রদান করেছে। বর্তমানে কয়েকজন ডিলার সার উত্তোলন করে উখিয়া সদর, কোটবাজার, মরিচ্যাও পালংখালী সহ বিভিন্ন ষ্টেশনে আনলেও অবিশিষ্ট সার আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে পৌঁছবে বলে ডিলারগণ জানান। প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, কৃষিমন্ত্রণালয় হতে চিকন দানাদার ইউরিয়া সার সরবরাহের কথা থাকলেও সরবরাহকৃত ইউরিয়া সার বড় দানাদার হওয়ায় স্থানীয় কৃষকরা পড়েছে বিপাকে। কারণ স্থানীয় কৃষকরা চিকন দানাদার সার ব্যবহার করতে আগ্রহী। অন্যদিকে বড় দানাদার সার জমিতে ব্যবহার করলে নানা রোগাক্রান্ত হয়ে ফসল এবং ফলন উৎপাদনও হয় কম। ফলে স্থানীয় চাষীরা বড় দানাদার ইউরিয়া সারের পরিবর্তে ছোট দানাদার ইউরিয়া সারের জন্য ডিলারের দোকানে ধর্ণা দিচ্ছে। কৃষকরা অভিযোগ করে বলেন, প্রায় সব ডিলারের দোকানে মোটা দানাদার ইউরিয়া সার বিক্রি করলেও অধিক মোনাফার জন্য চিকন দানাদার সার গুদামে মজুদ করে বাজারে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করেছে। কোন কৃষক চিকন দানাদার ইউরিয়া সার ক্রয় করতে চাইলে ডিলারগণ বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে অতিরিক্ত দাম হাতিয়ে নেয়। কেউ বেশি দাম দিতে না চাইলে বাজারের সারের সংকট চলছে কোন সার নেই বলে সাব-জবাব দেয়। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, প্রতি বস্তা ইউরিয়া সারের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৮শ টাকা। কৃষকরা জানান, ডিলারগণ চিকন সারের কথা বলে প্রতি বস্তা ইউরিয়া সারের দাম নেন ১৪-১৫শ টাকা। ডিলারের সাথে কথা বলে জানা যায, কৃষকের কাছে চিকন সারের চাহিদা আছে বিধায় আমরা বিভিন্ন স্থান থেকে সংগ্রহ করে উক্ত সার উখিয়ায় নিয়ে আসি। আমরাও চিকনদানাদার সার বেশি দামে ক্রয় করি বিধায় বিক্রির সময় একটু দাম বাড়িয়ে নিতে হয়। এছাড়াও হরতাল ও অবরোধের কারণে পরিবহন খরচ বেড়ে যাওয়ায় খুচরা বাজারে সারের দাম বাড়িয়ে নেওয়া ছাড়া আমাদের আর কোন উপায় থাকে না। সচেতন কৃষকরা অভিযোগ করে জানান, টাকা বেশি দিলে চিকন দানাদার সার পাওয়া যায়, অন্যতায় মোটা সার দানাদার সার আছে বলে ডিলারগণ কৌশল অবলম্বন করে। গত কয়েকদিন ধরে কোটবাজার ষ্টেশনে ডিলারগণের দোকানে চিকন দানাদার ইউরিয়া সারের দাম অতিরিক্ত নেওয়াকে কেন্দ্র করে চাষী ও ডিলারদের মধ্যে তর্ক বির্তক সহ বাক্-বিতন্ডার ঘটনাও ঘটেছে। তবে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে নিশ্চিত হওয়া গেছে, চিকন কিংবা মোটা ইউরিয়া সারের বস্তা একই দামে অর্থাৎ সরকারী নির্ধারিত মূল্য ৮শ টাকায় বিক্রি করার আদেশ রয়েছে। চিকন দানাদার ইউরিয়া সারের কথা বলে কোন অবস্থাতেই কৃষকের কাছ থেকে অতিরিক্ত দাম নিলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান। এলাকার সচেতন মহল মন্ত্রণালয় থেকে বরাদ্ধকৃত ইউরিয়া সার মোটা দানাদারের পরিবর্তে চিকন দানাদার সার সরবরাহ করার জন্য সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবী জানিয়েছে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: