‘এসপি বাবুল দু-একদিনের মধ্যে অফিসে যেতে পারেন’

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৩ জুলাই: পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আক্তার দু-একদিনের মধ্যে অফিসে যেতে পারেন বলে জানিয়েছেন তার শ্বশুর মোশাররফ হোসেন। বৃহস্পতিবার পুলিশ মহাপরিদর্শক একেএম শহীদুল হক চট্টগ্রামে একটি অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, বাবুল আক্তারের চাকরি এখনও আছে। তিনি বিনা অনুমতিতে কর্মস্থলে অনুপস্থিত। মানসিকভাবে বিপর্যস্ত থাকার কারণে তিনি চাকরিতে আসছেন না। তিনি পুলিশ হেডকোয়ার্টারের সঙ্গে কোনো যোগাযোগও রাখছেন না।s
এর প্রতিক্রিয়ায় মোশারফ হোসেন শুক্রবার সন্ধ্যায় বলেন, বাবুলের চাকরি আছে কি নাই সে ব্যাপারে আমরা কোনো কাগজ পাইনি। বাবুল যে দীর্ঘদিন অনুপস্থিত আছে সে ব্যাপারেও অফিস থেকে কিছু জানতে চাওয়া হয়নি।
তিনি বলেন, চাকরিতে অনুপস্থিত থাকলে অফিসকে জানানো যেমন বাবুলের দায়িত্ব, তেমনি অফিস থেকেও খোঁজ নেয়া দরকার ছিল কেন বাবুল অনুপস্থিত আছে। কিন্তু সেই খোঁজ নেয়নি।
আইজিপির কথার পরিপ্রেক্ষিতে বাবুল আক্তারের শ্বশুর মোশারফ হোসেন আরও বলেন, আইজিপি যখন বলেছেন বাবুলের চাকরি আছে, এখন হয়তো দু-একদিনের মধ্যে বাবুল অফিসে যোগাযোগ করতে পারে। এটা আমার ধারণা।
তিনি জানান, ২৬ জুনের পর বাসার সামনে থেকে পুলিশ সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এরপর থেকে পুলিশ আমাদের ভালোমন্দের বিষয়ে কোনো খোঁজখবর নেয়নি। এর আগ পর্যন্ত ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা খোঁজখবর নিয়েছেন। তবে এসব বিষয়ে এসপি বাবুল আক্তারের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।
৫ জুন সকাল সাড়ে ৬টার দিকে চট্টগ্রাম নগরীর জিইসি মোড়ের অদূরে এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতুকে গুলি ও ছুরিকাঘাতে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। হত্যাকাণ্ডের ৪৭ দিন পার হলেও সর্বশেষ কর্মস্থল পুলিশ সদর দফতরে যোগদান করেননি বাবুল আক্তার। বাবুল আক্তার নিজেও এ ব্যাপারে গণমাধ্যমের সঙ্গে কোনো কথা বলছেন না।
স্ত্রী হত্যাকাণ্ড মামলার বাদী বাবুল নিজেই। সেই মামলায় ২৪ জুন রাতে খিলগাঁও মেরাদিয়ার ভুইয়াপাড়ার শ্বশুরবাড়ি থেকে বাবুলকে ডিবি কার্যালয়ে নেয়া হয়। ১৫ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদের পর (২৫ জুন) তাকে ফের শ্বশুরবাড়ি পৌঁছে দেয়া হয়। স্ত্রী খুন হওয়ার পর থেকে দুই সন্তানকে নিয়ে তিনি সেখানেই আছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*