এরদোগানের হাতিয়ার ছিল ফোনটি

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১৭ জুলাই: মুঠোফোনের অ্যাপে ধারণ করা ভিডিও বার্তায় জনগণকে রাস্তায় নামার আহ্ববান জানান প্রেসিডেন্ট এরদোগান। ট্যাংক নিয়ে তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারার রাস্তায় নেমে যায় সেনাবাহিনীর একাংশ। অভ্যুত্থান চেষ্টায় তাদের সমর্থনে আকাশে জঙ্গিবিমান। রাষ্ট্রীয় প্রচারমাধ্যম নিয়ন্ত্রণে নিয়ে মার্শাল ল জারির ঘোষণা দিয়েছে অভ্যুত্থানকারীরা। সেই অবস্থায় তাদের রুখতে দেশের জনগণকে রাস্তায় নামতে বললেন প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান। এই বার্তা তিনি ছড়িয়ে দিলেন নিজের স্মার্টফোনে ধারণ করা এক ভিডিওর মাধ্যমে।erdoyan
গত শুক্রবার রাতে সেনাবাহিনীর একদল সদস্য যখন অভ্যুত্থান ঘটানোর চেষ্টা করে, তখন আঙ্কারা থেকে সাড়ে ৬০০ কিলোমিটার দূরে উপকূলীয় মারমারিস শহরে অবকাশ যাপনে ছিলেন এরদোগান। বিদ্রোহী সৈন্যরা অভ্যুত্থানের পর ফেসবুকসহ মুঠোফোনের নানা অ্যাপ বন্ধ করে রাজধানী ও দেশটির সবচেয়ে বড় শহর ইস্তাম্বুলের বাসিন্দাদের ইন্টারনেট যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। তখন এরদোগান নিজের অ্যাপল আইফোনের ফেস টাইম অ্যাপ ব্যবহার করে একটি বক্তব্য রেকর্ড করেন। এতে তিনি অভ্যুত্থান ঠেকাতে জনগণকে রাজপথে নামতে বলেন। অভ্যুত্থানের পর এটিই ছিল এরদোগানের প্রথম প্রকাশ্যে আসা।
মুঠোফোনে ধারণ করা এরদোগানের ওই ভিডিও বার্তা সিএনএনের তুর্কি ভাষায় প্রচারিত টেলিভিশন চ্যানেলে দেখানো হয়। টেলিভিশনের সংবাদ পাঠক টেলিভিশনের ক্যামেরা আইফোনের সামনে রেখে তা প্রচার করেন।
বক্তব্যে এরদোগান বলেন, ‘জনগণের প্রতি আহ্ববান জানাচ্ছি, রাস্তায় নামুন এবং তাদের জবাব দিন। তাদের কাছে ট্যাংক-কামান থাকতে পারে, কিন্তু জনগণের চেয়ে বড় কোনো শক্তি নেই। আমি আঙ্কারায় আসছি।’
এরদোগানের এই বক্তব্যের পরই অবস্থা পাল্টে যায়। হাজার হাজার মানুষ রাস্তায় নেমে আসে এবং বিদ্রোহীদের দখল করা জায়গায় নিজেদের অবস্থান নেয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*