একটি কেন্দ্র দখলের কাহিনী

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : রাজধানীর মিরপুর শাহ আলী মহিলা centerবিশ্ববিদ্যালয় কলেজ কেন্দ্র। বেলা ১১টা ৪০ মিনিট। এসময় ৩০-৪০ জনের একটি দল হইচই করে কেন্দ্রে ঢুকে ১০২ থেকে ১০৫ নম্বর কক্ষে গিয়ে কেন্দ্রের দখল নিয়ে নেয়। তারা সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তাদের কাছ থেকে ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়ে আওয়ামী লীগ-সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী কাজী টিপু সুলতানের প্রতীক ‘ঠেলাগাড়ী’-তে সিল মেরে বাক্সে ভরতে থাকে। এর আগে ওই কেন্দ্রে অবস্থান করছিলেন ম্যাজিস্ট্রেট আনারকলি। তাঁর সঙ্গে ছিলেন শাহ আলী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মইনুদ্দিন। এসময় ৩০-৪০ জনের ওই যুবকের দল এসে কথা বলেন এই এসআইয়ের সঙ্গে। এসআই বলেন, ‘ম্যাডাম এখনো বের হননি। একটু পরে আসেন।’ এর পরই একটি কেন্দ্র দখল হচ্ছে এই কথা বলে ওই ম্যাজিস্ট্রেট নিয়ে চলে যান তাঁরা। এর পাঁচ মিনিট পর যুবকদের ওই দলটি দখল করে নেয় কেন্দ্রটি। প্রায় ৩০ মিনিট ধরে চলে এ কেন্দ্র দখল। পরে উপস্থিত ভোটারদের হুমকি দেয় তারা। ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নেওয়ার সময় সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মোমিনুল ইসলাম বাধা দিলে তারা তাঁর গায়ে সিলের কালি মেখে তাঁকে লাঞ্ছিত করেন। এ বিষয়ে প্রিসাইডিং কর্মকর্তা কামাল উদ্দিনকে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হলেও তিনি কোনো পদক্ষেপ নেননি। এ সময় পুলিশ সদস্য ও আনসার সদস্যরা দূরে চেয়ারে বসেছিলেন। ওই যুবকের দল বের হয়ে যাওয়ার কিছুক্ষণ পর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আনারকলি ফের এই কেন্দ্রে আসেন। তিনি পরিদর্শন করে চলে যান। এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমার অগোচরে যেসব ঘটনা ঘটবে, সেগুলো আমার এখতিয়ারে নাই।’ ওই যুবকদের সহযোগিতা করার বিষয়ে জানতে চাইলে এসআই মইনুদ্দিন বলেন, ‘আমি তো তাদের আরও ধাক্কা দিয়ে বের করে দিলাম। আমরা অন্য কেন্দ্রে যেতেই এ ঘটনা ঘটল।’ সূত্র : শীর্ষ নিউজ ডটকম

Leave a Reply

%d bloggers like this: