উপকারী ৫ তেল

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ৫ মে ২০১৭, শুক্রবার: অ্যালার্জি, চুলকানি, অ্যাজমা বা ত্বকের সমস্যায় ভুগছেন অনেক দিন থেকেই। কিছুতেই এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাচ্ছেন না। তাদের জন্য এমন পাঁচটি প্রাকৃতিক তেল যা এ সমস্যা থেকে আপনাকে মুক্তি দিতে পারে।
বাসিল অয়েল: যাদের অ্যালার্জি আছে তাদের জন্য এই তেল খুবই উপকারী। এটা প্রদাহ নাশক। এ তেল দেহের ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাস ধ্বংস করে। এটা ব্যথা ও চুলকানি রোধ করে। এ তেলে থাকা বিশেষ উপাদান ব্যাকটেরিয়া ও অ্যাজমার প্রতিরোধ করে। স্যুপ বা সালাদ ড্রেসিংয়ের সময় এক ফোটা বাসিল অয়েল প্রদাহের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ করে। এটা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে।
ল্যাভেন্ডার অয়েল: এ তেলেও প্রদাহরোধী শক্তিশালী উপাদান আছে। যা অ্যালার্জির বিরুদ্ধে লড়াই করে। যাদের অ্যালার্জি আছে তাদের জন্য ল্যাভেন্ডার তেল খুবই উপকারী। এছাড়া নিয়মিত এ তেল ত্বকে ব্যবহার করলে ত্বক কোমল করে। শরীরে অ্যালার্জি উঠতে শুরু করলে দুই হাতের তালুতে তেল নিয়ে নাকের কাছে নিয়ে জোরে জোরে শ্বাস নিতে হবে। অ্যালার্জি বেশি থাকলে তুলার বলে এ তেল লাগিয়ে কাছে রাখতে পারে।
মেন্থল অয়েল: ইউরোপিয়ান জার্নাল অব মেডিকেল রিসার্চে প্রকাশিত একটি গবেষণা প্রতিবেদনে দেখা গেছে, মেন্থল মিশ্রিত তেলও শরীরে প্রদাহ প্রতিরোধী হিসেবে কাজ করে। এটা দীর্ঘদিনের প্রদাহ জনিত সমস্যা, অ্যালার্জি ও অ্যাজমা কমাতে সাহায্য করে। এছাড়া এটা ঠা-া জনিত সমস্যা, সাইনাসের ক্ষেত্রেও সমানভাবে কার্যকরী।
টি ট্রি অয়েল: অ্যালার্জির জন্য দায়ী ভাইরাস ধ্বংস করে টি ট্রি তেল। বাড়িতে এ তেল ছড়িয়ে দিলে তা ঘরের বাতাসে থাকা ব্যাকটেরিয়া ও ছত্রাক ধ্বংস করে। প্রাকৃতিক হওয়ায় এ তেলে রয়েছে প্রদাহ প্রতিরোধী উপাদান। এটা ত্বকের নানা সমস্যা প্রতিরোধে খুবই কার্যকর। এ তেলে নিয়মিত ব্যবহার করলে ত্বকে চুলকানি ও র‌্যাশ ওঠে না। তুলার ২-৩ ফোটা তেল লাগিয়ে তা ত্বকের আক্রান্ত এলাকায় লাগালেই ফল পাওয়া যাবে।  তবে স্পর্শকাতর ত্বকে এ তেল ব্যবহার না করে নারকেল তেল লাগতে পারেন।
লেমন অয়েল: যাদের শ্বাস-প্রশ্বাস জনিত সমস্যা রয়েছে তাদের জন্য লেমন অয়েল খুবই উপকারী। গবেষণায় দেখা গেছে, এ তেলের ব্যবহার দেহে ব্যাকটেরিয়ার জন্ম প্রতিরোধ করে। একইসঙ্গে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ায়। ঘরের মধ্যে লেমন ওয়েল ছড়িয়ে রাখতে তা বাতাসে থাকা ব্যাকটেরিয়া জন্মাতে দেয় না।  এক গ্লাস পানির সঙ্গে ১-২ ফোটা লেমন অয়েল মিশিয়ে পান করলে তা শরীরে পিএইচ ব্যালান্স ঠিক রাখে। আপনি চাইলে এটা ডিটারজেন্টের সাথে মিশিয়ে রাখতে পারেন। এছাড়া বিছানা, বিছানার চাদর, পর্দা ও কাপেট পরিষ্কারের সময় লেমন অয়েল মিশ্রিত পানি স্প্রে কতে পারেন। সূত্র: ন্যাচারাল হেলদি ফুড।

Leave a Reply

%d bloggers like this: