উন্নয়নের স্বার্থে নয়, দুর্নীতির দায় জনগণের ওপর চাপানোর লক্ষ্যে গ্যাসের দাম বাড়ানো: বাসদ

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ০৯ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার: চীন সফর শেষে দেশে ফিরে গতকাল সোমবার সংবাদ সম্মেলনে গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী যে বক্তব্য দিয়েছেন তাতে দেশবাসী স্তম্ভিত হয়েছে। এমন দাবি করেছে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল- বাসদ।


মঙ্গলবার দলটির কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান এক বিবৃতিতে বলেন, বাজেট বক্তৃতায় ১২ পৃষ্ঠার ৩৮ অনুচ্ছেদে উল্লেখ ছিল, সরকার এমন কোনো সিদ্ধান্ত নেবে না যাতে জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধি পায়। অথচ বাজেট পাসের দিনই গ্যাসের মূল্য ৩২.৮০% বৃদ্ধিতে রড, সিমেন্ট, বাড়িভাড়া, পরিবহন ভাড়া, চুলার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধিসহ সবক্ষেত্রে মূল্যবৃদ্ধির লাগামহীন যাত্রা শুরু হয়েছে। বিষয়টি কীভাবে প্রধানমন্ত্রীর নজর এড়িয়ে গেল তা বুঝা কঠিন।

তিনি বলেন, দেশে ফিরে এসে পর্যবেক্ষণ ও তথ্য যাচাইসহ জনমতের বিষয়টি বিবেচনায় নেয়া দরকার ছিল। এছাড়া পার্লামেন্ট সেশনে ছিল অথচ পার্লামেন্টে এ বিষয়ে কোনো আলোচনা-পর্যালোচনা দূরে থাক, বিষয়টি উত্থাপিতই হয়নি। বর্তমান পার্লামেন্টের জনপ্রতিনিধিত্বের ন্যায্যতা বা গ্রহণযোগ্যতা না থাকলেও বাস্তবে বিদ্যমান থাকায় তা উপেক্ষা করে নিজেরাই নিজেদের গুরুত্বহীনতা মেনে নিয়েছেন। চুরি, দুর্নীতি বন্ধ করে কথিত সিস্টেম লস কমিয়ে যে ঘাটতি পূরণ করা যেত তাতে মূল্যবৃদ্ধির প্রয়োজন ছিল না।
ওই বিবৃতিতে আরও বলা হয়, উন্নয়নের স্বার্থে নয়, দুর্নীতির দায় জনগণের ওপর চাপানোর লক্ষ্যে গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়েছে। তাছাড়া ভূমিতে ও সাগরে গ্যাস উত্তোলনে হাতগুঁটিয়ে এলএনজি বিদেশ থেকে আমদানি করে মুষ্টিমেয় কয়েকটি কোম্পানির পকেট ভারী করার প্রয়োজন ছিল না।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ভারত যেখানে ছয় ডলারে আমদানি করে সেখানে আমাদের ১০ ডলারে আমদানি করার যুক্তি কী? আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমার সময় আমাদের দাম বৃদ্ধির প্রয়োজনই বা কী? মুষ্টিমেয় একটা গোষ্ঠীর উন্নয়নকে জাতির, জনগণের ও দেশের উন্নতি বলে চালিয়ে জনরগণের পকেট কাটা নীতি সমর্থনযোগ্য হতে পারে না।

খালেকুজ্জামান বলেন, শিল্প সংখ্যা কমছে, বেকারদের কর্মসংস্থান নাই বললেই চলে, ব্যাংকসহ সব আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে লুটপাটের কবল থেকে মুক্ত করা যাচ্ছে না, বিনিয়োগ পরিস্থিতিতে মন্দা চলছে, দারিদ্র্য কমার হার কমছে, ধনী-দরিদ্র বৈষম্য বাড়ছে। গোটা সমাজে সহিংসতা, অরাজকতা, নিরাপত্তাহীনতাসহ নারী-শিশু নির্যাতন ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। আর্থিক বোঝা বৃদ্ধিতে সহায়ক গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি গোদের ওপর বিষফোঁড়ার মতো জনজীবনে দুর্ভোগ বাড়াবে। আমরা গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি এবং মূল্য কমানোর যে যুক্তিসমূহ উত্থাপিত হয়েছিল নানা মহল থেকে তা বিবেচনায় নেয়ারও দাবি রাখছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*