ইতিহাস গড়ার প্রহর গুনছে বাংলাদেশ জাতীয় নারী ফুটবল দল

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ০৪ জানুয়ারী ২০১৭, বুধবার: তেনজিং নোরগে তার বই ম্যান অফ এভারেস্ট-এ কাঞ্চনজঙ্ঘাকে ‘তুষারের পাঁচ ধনদৌলত’ বলে আখ্যায়িত করেছেন। এগুলো হলো- স্বর্ণ, রূপা, রতœ, শস্য, এবং পবিত্র পুস্তক। নোরগের এই পঞ্চরতেœর চূড়ায় ইতিহাস গড়ার প্রহর গুনছে বাংলাদেশ জাতীয় নারী ফুটবল দল।
ছেলেদের ফুটবল যখন ধুঁকে ধুঁকে মরছে, ঠিক তখন একের পর পর আলো ছড়িয়ে যাচ্ছে সাবিনারা। সন্ধ্যা ছয়টার ম্যাচে ভারতকে হারাতে পারলেই সাফ ফুটবলের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন হবে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা।
এই টুর্নামেন্টে বিদেশি দলগুলোর কাছে বিস্ময় হয়ে হাজির হয়েছে বাংলাদেশ। অনূর্ধ্ব-১৬ দল থেকে প্রায় ১৫ জন নতুন খেলোয়াড় নিয়ে গড়া হয়েছে স্কোয়াড। ডিফেন্স এতটাই মজবুত যে এখনো কোনো দল বাংলাদেশের জালে বল পাঠাতে পারেনি।
বাংলাদেশ আফগানিস্তানকে ৬-০ গোলে উড়িয়ে দেয়ার পর সামনে পড়ে ভারত। ম্যাচটি ছিল গ্রুপ সেরা হওয়ার লড়াই। ওই ম্যাচের আগে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের শতভাগ হারের রেকর্ড ছিল। এবার নতুন বাংলাদেশ ভারতকে আটকে গোলশূন্য ড্র করে।
২০১০ সালে এই ভারতের কাছে ৬-০ গোলে হেরেছিল বাংলাদেশ। এরপর ২০১২ সালে ৩-০, ২০১৪ সালে ৫-১।

ভারত এই আসরের অন্যতমে ফেভারিট দল। কিন্তু বাংলাদেশকে তারা সমীহ করছেন। দলটির কোচ বলে দিয়েছেন, এই বাংলাদেশকে তিনি আগে দেখেননি।
সাফে ছেলেরা ২০০৩ সালে চ্যাম্পিয়ন হয়। এরপর ২০০৫ সালে ফাইনালে উঠেছিল বাংলাদেশ। মেয়েদের গত তিনটি সাফের দুটিতেই বিদায় সেমিফাইনালে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: