ইঞ্জিনিয়ার্স ডে উপলক্ষে আইইবির বর্ণাঢ্য কর্মসূচি, সংবাদ সম্মেলন

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : ইঞ্জিনিয়ার্স ডে উপলক্ষে ৭ মে ২০১৫ বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় আয়োজিত মত বিনিময় ও সাংবাদিক সম্মেলনে আইইবি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মনজারে খোরশেদ আলম বলেছেন, যেসব দেশ তথ্য প্রযুক্তিতে শক্তিশালী তারাই বিশ্বে মর্যাদার ctg_press_meetঅধিকারী এবং অর্থনৈতিকভাবে উন্নত ও সমৃদ্ধ। বাংলাদেশ যদি তথ্য প্রযুক্তিতে সমৃদ্ধ হতে পারে তাহলে বিশ্বের দরবারে মর্যাদার আসন লাভ করবে। তিনি লিখিত বক্তব্যে আরও বলেন, প্রকৌশলীদের বাদ দিয়ে এটা সম্ভব নয়। কারণ প্রকৌশলীরাই হচ্ছে প্রযুক্তির ধারক ও বাহক। এজন্য প্রকৌশলীদের জ্ঞান ও মেধাকে কাজে লাগাতে হবে। তাদের মেধা বিকাশের জন্য নিয়মিত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের বর্তমান প্রধান সমস্যাগুলো দূর করতে হলে তথ্য প্রযুক্তির প্রয়োগ ছাড়া সম্ভব নয়। গ্যাস বিদ্যুৎ, পানি, জলাবদ্ধতা, কারখানার নিরাপত্তা ও ভবন ধ্বস সহ বিভিন্ন সমস্যা প্রযুক্তির মাধ্যমেই মোকাবেলা সম্ভব। প্রকৌশল ব্যবস্থাপনাকে গতিশীল না করলে এদেশে আমলাতন্ত্র আরও চেপে বসবে। এতে বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়া কঠিন হয়ে উঠবে। বক্তারা প্রকৌশলীদের এ আবেদনকে গুরুত্ব দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ জানিয়ে বলেন, সরকারি বেসরকারি সকল পর্যায়ে ইঞ্জিনিয়ারদের উৎসাহ ব্যঞ্জক কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করা এখন সময়ের দাবি। ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ (আইইবি) এর ৬৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আইইবি, চট্টগ্রাম কেন্দ্র মিলনায়তনে আয়োজিত এই মত বিনিময় সাংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রের ভাইস-চেয়ারম্যান (একা. এন্ড এইচআরডি) অধ্যাপক প্রকৌশলী মোহাম্মদ রফিকুল আলম, ভাইস-চেয়ারম্যান (এডমিন, প্রফেশ, এন্ড এসডব্লিউ) প্রকৌশলী এম. এ. রশীদ এবং সম্মানী সম্পাদক প্রকৌশলী উদয় শেখর দত্ত, কেন্দ্রিয় কাউন্সিল সদস্য প্রকৌশলী কে এম সুফিয়ান, কাউন্সিল সদস্য প্রকৌশলী প্রবীর কুমার দে, প্রকৌশলী আলতাফ হোসেন, প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন, প্রকৌশলী বিধান চন্দ্র দাশ, প্রকৌশলী জাহিদ আবছার চৌধুরী, প্রকৌশলী রতন কান্তি দাশ, প্রকৌশলী এম সামশুদ্দিন খালেদ প্রমুখ। সাংবাদিকদের সঙ্গে প্রশ্নোত্তরে আইইবি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের প্রকৌশলী নেতৃবৃন্দ বলেন, দেশের অগ্রগতির মূল বাধা হচ্ছে প্রকৌশল নির্ভর প্রতিষ্ঠানকে অপ্রকৌশলী কর্মকর্তা দিয়ে পরিচালনা করা। যেখানে প্রকৌশলীরা কাজ করছেন সেখানেও প্রকৌশলীদের কর্ম ও সৃজনশীলতাকে উৎসাহিত করা হচ্ছে না। এমন কি পরিকল্পনা প্রণয়ণেও প্রকৌশলীদের সম্পৃক্ত করা হয় না। বিভিন্ন সঙ্কটময় মুহূর্তে প্রকৌশলীদের পরামর্শ গ্রহণ এবং বিভিন্ন ডিসিপ্লিনের পরীক্ষীত বিশেষজ্ঞ প্রকৌশলীদের নিয়ে একটি প্যানেল গঠন করা এবং তাদের সঙ্গে নিয়মিতভাবে মত বিনিময় করার মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের উপায় বের করা যেতে পারে। এছাড়া বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বিদেশি প্রকৌশলীদের নির্ভরতা বাড়ছে বলেও তারা জানান। এর আগে এ উপলক্ষে দিনব্যাপী বর্ণাঢ্য কর্মসূচির আওতায় ৭ মে বৃহস্পতিবার সকালে কেন্দ্র চত্ত্বরে জাতীয় পতাকা ও আইইবির পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। কেন্দ্রের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মনজারে খোরশেদ আলম কেন্দ্রের ভাইস-চেয়ারম্যান (একা. এন্ড এইচআরডি) অধ্যাপক প্রকৌশলী মোহাম্মদ রফিকুল আলম, ভাইস-চেয়ারম্যান (এডমিন. প্রফেশ. এন্ড এসডব্লিউ) প্রকৌশলী এম. এ. রশীদ এবং সম্মানী সম্পাদক প্রকৌশলী উদয় শেখর দত্ত এর নেতৃত্বে জাতীয় ও আইইবির পতাকা উত্তোলন করা হয়। জাতীয় পতাকা উত্তোলনের পর পর উপস্থিত প্রকৌশলীবৃন্দকে শপথ বাক্য পাঠ করান কেন্দ্রের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মনজারে খোরশেদ আলম। সমবেত প্রকৌশলীদের সাথে নিয়ে বেলুন ও ফেস্টুন উড়িয়ে ইঞ্জিনিয়ার্স ডে’র কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন কেন্দ্রের চেয়ারম্যান। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে কেন্দ্র থেকে ব্যান্ড পাটি, ঘোড়ারগাড়ি ও রং বেরংয়ের ফেস্টুনসহ এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালীটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কসমূহ প্রদক্ষিণ শেষে আইইবি, চট্টগ্রাম কেন্দ্রের ক্যাম্পাসে এসে শেষ হয়। র‌্যালীতে কেন্দ্রের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মনজারে খোরশেদ আলম, কেন্দ্রের ভাইস-চেয়ারম্যান (একা. এন্ড এইচআরডি) অধ্যাপক প্রকৌশলী মোহাম্মদ রফিকুল আলম এবং কেন্দ্রের সম্মানী সম্পাদক প্রকৌশলী উদয় শেখর দত্তসহ বিপুল সংখ্যক প্রকৌশলী অংশগ্রহণ করেন। এছাড়া ইঞ্জিনিয়ার্স ডে উপলক্ষে ৭ মে বিকেলে রক্তদান কর্মসূচি এবং রাতে কেন্দ্রের সম্মানিত প্রাক্তন নির্বাহীদের সংবর্ধনা, প্রবীন ও বিশিষ্ট প্রকৌশলীদের স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. প্রকৌশলী মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম। প্রাক্তন নির্বাহীদের সংবর্ধনা ও স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি আইইবি’র ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে এবং প্রকৌশলীদের পেশাগত দক্ষতা ও মান উন্নয়নের লক্ষ্যে আগামী দিনগুলোতে তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর বিভিন্ন কর্মসূচীর আয়োজনের মধ্য দিয়ে দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে অবদান রাখার আহ্বান জানান। কেন্দ্রের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মনজারে খোরশেদ আলম এর সভাপতিত্বে এবং কেন্দ্রের সম্মানী সম্পাদক প্রকৌশলী উদয় শেখর দত্ত এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা ও স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানে আরোও বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রের ভাইস-চেয়ারম্যান (একা. এন্ড এইচআরডি) অধ্যাপক প্রকৌশলী মোহাম্মদ রফিকুল আলম, ভাইস-চেয়ারম্যান (এডমিন. প্রফেশ. এন্ড এসডব্লিউ) প্রকৌশলী এম. এ. রশীদ, কেন্দ্রের প্রাক্তন চেয়ারম্যান প্রকৌশলী এ এ এম জিয়া হুসাইন, প্রকৌশলী এ কে এম ফজলুল্লাহ, প্রকৌশলী জ.স.ম বখতেয়ার, প্রকৌশলী এম. আলী আশরাফ, পিইঞ্জ., প্রকৌশলী মোঃ দেলোয়ার হোসেন, পিইঞ্জ., প্রকৌশলী মোহাম্মদ হারুন, প্রাক্তন ভাইস-চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মোঃ নুরুল করিম, প্রকৌশলী এ এস এম নাসিরুদ্দিন চৌধুরী, পিইঞ্জ., প্রকৌশলী সাদেক মোহাম্মদ চৌধুরী ও প্রাক্তন সম্মানী সম্পাদক প্রকৌশলী কাজী ইয়াকুব সিরাজদ্দৌলাহ প্রমুখ। সংবর্ধনা ও স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানে কেন্দ্রের প্রাক্তন নির্বাহীদের উত্তরীয় পরিয়ে দেয়ার পাশাপাশি স্মৃতিস্মারক প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী মেজবানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে বিপুল সংখ্যক প্রকৌশলী ও প্রকৌশলী পরিবারের সদস্য অংশগ্রহণ করেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: