আশুলিয়ায় পোশাক শ্রমিকদের বাড়িভাড়া বাড়ালে ব্যবস্থা: বাণিজ্যমন্ত্রী

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ডিসেম্বর ২০, ২০১৬, মঙ্গলবার: আগামী তিন বছর আশুলিয়ায় পোশাক শ্রমিকদের বাড়িভাড়া বাড়ালে সেই মালিকের বিরুদ্ধে সরকার ব্যবস্থা নেবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।
সোমবার রাতে রাজধানীর মিন্টু রোডে নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খানের বাসায় আশুলিয়ায় আন্দোলনরত পোশাক শ্রমিকদের প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের তিনি একথা জানান।
ন্যূনতম মজুরি বাড়ানোর পাশাপাশি হঠাৎ শ্রমিক ছাঁটাই বন্ধ, ছাঁটাইয়ের পর নিয়ম অনুযায়ী প্রাপ্য পরিশোধ এবং ছুটিকালীন বেতন বহাল রাখার দাবিতে গত সোমবার থেকে আন্দোলন করতে থাকে আশুলিয়ার বেশ কয়েকটি তৈরি পোশাক কারখানার কর্মীরা। সেদিন আশুলিয়ার জামগড়া এলাকার উইন্ডি গ্রুপের শ্রমিকরা কাজ বন্ধ করে বিক্ষোভ করেন। এরপর গত এক সপ্তাহ ধরে বেশ কয়েকটি পোশাক কারখানার শ্রমিকরা একই দাবিতে আন্দোলন করে আসছিলেন। আন্দোলনে একাত্ম হয়ে গত রবিবারও কাজ বন্ধ করে বিক্ষোভ করে ১২টি কারখানার পোশাক শ্রমিকরা। সোমবার জামগড়া এলাকায় কয়েক হাজার শ্রমিক আন্দোলনে নামে।
গার্মেন্টস শ্রমিকদের আন্দোলনের বিষয়টি সুরাহা করতে রাতে নৌমন্ত্রীর বাসায় বৈঠক ডাকা হয়। বৈঠকে শ্রমিকদের দাবি অনুযায়ী আগামী তিন বছর আশুলিয়ার বাড়ি ভাড়া না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনা সরকার শ্রমবান্ধব সরকার। তিনি শ্রমিকদের বেতন ১৬০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫০০০ করেছিলেন। তিনি বলেন, ‘গত কয়েক বছরে আন্তর্জাতিক বাজারে পোশাকের দাম না বাড়লেও বাংলাদেশের গার্মেন্ট মালিকরা তাদের শ্রকিকদের বেতন বাড়িয়েছেন। তবে হ্যাঁ সবেচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে কথায় কথায় বাড়িভাড়া বাড়ানো। শ্রমিকদের দাবি অনুযায়ী আগামী তিন বছর আশুলিয়ায় পোশাক শ্রমিকদের বাড়ি ভাড়া না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে এ ব্যাপারে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এরপরেও যদি কেউ ভাড়া বাড়ায় তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’
শ্রমিকদের উদ্দেশ্যে করে তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘এখন পিক আওয়ার চলছে। আপনারা ভালোভাবে কাজ করুন। রানা প্লাজা ধসের পর পোশাক শিল্পে অনেক ক্ষতি হয়েছে। সেই অবস্থা থেকে আমরা ফিরে এসেছি। এখন বিদেশিরা বলছে বাংলাদেশে ব্যবসার ভালো পরিবেশের কথা। তাই আপনারা আন্দোলন না করে কাজে যোগ দিন। আপনাদের বাকি সমস্যাও দেখা হবে। তবে যারা কাজ করবেন না তারা বেতনও পাবেন না।নো ওয়ার্ক নো পে।’
বৈঠক শেষে গার্মেন্টস ওয়ার্কার ফেডারেশনের সভাপতি লাভলি ইয়াসমিন শ্রমিক জানান, ‘সরকারের কাছ থেকে আশ্বাস পাওয়ায় আমরা ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নিলাম। আগামীকাল থেকে সবাই কাজে যোগ দেবে।’
বাণিজ্যমন্ত্রী ছাড়াও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু, পুলিশের আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক, র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমদ, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাত উন্নয়ন বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, সাভারের সংসদ সদস্য ডা. এনাম আহমেদ, এফবিসিসিআইয়ের সিনিয়র সহসভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, সাবেক সভাপতি এ কে আযাদ, বিজিএমইএর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান, সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*