আবারও শুরু হয়েছে সাগরপথে মানব পাচার

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ০৯ জুন ২১০৭, শুক্রবার: আবারও শুরু হয়েছে সাগরপথে মানব পাচার। চিহ্নিত পাচারকারীদের আইনের আওতায় না আনায়, ফের সক্রিয় তারা। এখন মূলত, পাচার হচ্ছেন, মিয়ানমারে নির্যাতনের শিকার, রোহিঙ্গারা। যদিও পুলিশের দাবি, পাচারের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
বছর দুই আগের কথা। পাচারের শিকার মানুষের গণকবর আবিষ্কারের পর, থাইল্যান্ড-মালয়েশিয়া সীমান্তে অভিযান শুরু হলে, বেরিয়ে আসে সমুদ্র পথে মানব পাচারের ভয়াবহ চিত্র।
জাতিসংঘের হিসেবে ২০১২ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ ও মিয়ানমার থেকে এই পথে পাচার হয়েছেন ১ লাখ ৭০ হাজার মানুষ। যাদের অধিকাংশ মিয়ানমারের নির্যাতিত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী।
মাত্র দুবছরের মাথায় আবারো সমুদ্র পথে মানব পাচার শুরু হয়েছে। গত ৯ মে কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে মালয়েশিয়ায় পাচারের সময় ১৯ জনকে আটক করে পুলিশ। এর মধ্যে ২ জন বাংলাদেশি দালাল। বাকীরা মিয়ানমারের রোহিঙ্গা।
টেকনাফ-উখিয়ার সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান বদি নিশ্চিত করেছেন, পাচার শুরু হয়ে গেছে। তবে, এখন শুধু রোহিঙ্গারাই যাচ্ছে।
সমুদ্র পথে মানব পাচার বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদনে যেসব পাচারকারীকে চিহ্নিত করা হয়েছিল, সেখানে এমপি বদির নাম ছিল এক নম্বরে। শীর্ষ তালিকায় ছিল, তার ভাই, আত্মীয় ও রাজনৈতিক আশ্রয়-প্রশ্রয়ে থাকা নেতা-কর্মীরাও।
পুলিশ একদিকে যেমন আইনের আওতায় আনতে পারেনি ক্ষমতাধর পাচারকারীদের; অন্যদিকে নতুন করে মানব পাচার শুরু হওয়ার বিষয়টিও মানতে নারাজ।
কক্সবাজারে গত দুই বছরে মানব পাচার আইনে প্রায় ৪০০ মামলা হয়েছে। কিন্তু, মামলাগুলো সঠিকভাবে উপস্থাপন করা হয়নি এবং কোন মামলাতেই চিহ্নিত শীর্ষ পাচারকারীদের আসামী করতে পারেনি পুলিশ। চ্যানেল টোয়েন্টিফোর

Leave a Reply

%d bloggers like this: