আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি বিবৃতিসর্বস্ব হয়ে পড়েছে: হাছান

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ০৯ জানুয়ারী ২০১৭, সোমবার: ‘আন্দোলনে ব্যর্থ হলেও জনসমর্থনে বিএনপি কম নয়’ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন মন্তব্যের একদিন পর দলটির প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ দাবি করেছেন, আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি বিবৃতিসর্বস্ব হয়ে পড়েছে। সাংবাদিকদের কল্যাণে আজও তারা জানতে পারছেন যে বিএনপি নামে একটি রাজনৈতিক দল আছে।
সোমবার রাজধানীর প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে এ আলোচনা সভার আয়োজন করে জাতীয গণতান্ত্রিক লীগ ও ন্যাপ ভাসানী।
বিএনপি ২০১৩ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে দুই দফা সহিংস আন্দোলনে গিয়ে ব্যর্থ হয়ে ঘরে ফিরেছে। এরপর আর দলটি বলার মতো কোনো সরকারবিরোধী কর্মসূচি দেয়নি। ক্ষমতাসীন দলের নেতারা এজন্য বিএনপিকে নানা সময় তুচ্ছতাচ্ছিল্য করে বক্তব্য দিচ্ছেন। এরই মধ্যে গতকাল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিএনপি আন্দোলনে ব্যর্থ হলেও তাদের বিশাল জনসমর্থন আছে বলে নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকতে বলেন।
হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আন্দোলনের নামে হঠকারী সিদ্ধান্ত নিয়েছিল বিএনপি। যারা মানুষকে পেট্রোল বোমা দিয়ে পুড়িয়ে মারে তাদেরকে সন্ত্রাসী দল বলা যায়, কিন্তু তারা কোনো রাজনৈতিক দল হতে পারে না। এসময় বিএনপির নেতৃত্ব পরিবর্তন হলে তবেই বিএনপি শক্তিশালী হবে।’
৫ জানুয়ারি নির্বাচন না হলে সাংবিধানিক শূন্যতা সৃষ্টি হতো মন্তব্য করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘৫ জানুয়ারিকে বিএনপি কালো দিবস হিসেবে পালন করে। সেদিন নির্বাচন না হলে সাংবিধানিক শূন্যতার সুযোগে অপশক্তি ক্ষমতায় আসত এবং বিএনপি সেই ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চেয়েছিল।’
অনেক প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে দেশ আজ এগিয়ে যাচ্ছে মন্তব্য করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘৮১ সালে সব প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে এ জাতির মুক্তির জন্য শেখ হাসিনা দেশে ফিরে এসেছিলেন। ৮৮ সালে চট্টগ্রামে পাখি শিকারের মতো হত্যা চেষ্টা করা হয়েছে।’ কোটালিপাড়ায় ৭৬ কেজি বোমা, ২০০৪ সালে গ্রেনেড মেরে হত্যা চেষ্টা সর্বোপরি বিমানে হত্যাচেষ্টা নিয়ে ৩০ বার তাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়। এত কিছু উপেক্ষা করেও শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে যাচ্ছে।’
আলোচনা অনুষ্ঠানে বিএনএফের প্রেসিডেন্ট এস এম আবুল কালাম আজাদ বক্তব্য দেন। তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতাবিরোধীরা সব সময় চক্রান্ত করে আসছে। হত্যাকারীরা পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে দেশকে এক অনিশ্চয়তার পথে নিয়ে যায়। সেখান থেকে আজ উত্তরণ হলেও হত্যাচেষ্টা এখনও চলছে। সর্বশেষ বিমানে যে ঘটনা ঘটেছে, সেটি নিছক দুর্ঘটনা নয়। এটি একটি হত্যা চেষ্টা।’
স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোল্লা মোহাম্মদ আবু কাওছার বলেন, ‘পৃথিবীতে কোনো দেশ নেই যেখানে স্বাধীনতার পক্ষ-বিপক্ষ আছে। কিন্তু বাংলাদেশে বিভিন্ন সময় অপশক্তি মুক্তিযুদ্ধকে ক্ষত-বিক্ষত করেছে। পঁচাত্তর পরবর্তী বাংলাদেশকে আবারও পাকিস্তানি ভাবধারা প্রতিষ্ঠার চেষ্টা হয়েছে এ দেশে।’
ন্যাপ ভাসানীর চেয়ারম্যান এ এ ভাসানীর সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য দেন বঙ্গবন্ধু পরিষদের প্রচার সম্পাদক মতিউর রহমান লাল্টু, জাতীয় প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়া, আওয়ামী লীগের সহসম্পাদক এম এ করিম প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*