আইএলটি ইংলিশ কেয়ার-এ ইংরেজি সৃজনশীল পাঠদান মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দীনের বিরল কৃতিত্ব

শ.ম হাবিবুর রহমান, ০৪ জানুয়ারী ২০১৭, বুধবার: “শিখার জন্য শিক্ষা” চিরায়ত সত্যের এক শাশ্বত বাণী। জীবন আছে বলেই জানতে হবে, আর জানতে হলে শিখতে হবে। শিক্ষার বিকল্প বড় অর্জন আর কিছুই হতে পারে না। সময়ের বিবর্তনে, চাহিদার অর্জনে পরিবর্তন আর পরিবর্ধন সময়ের দাবী। বিশ্ব যখন একমুঠোই আর বিনিময় মাধ্যম তখন ইংরেজি। সকল স্তরের আন্তর্জাতিক চালিকা শক্তি ইংরেজি। দক্ষিণ এশিয়ার জনশক্তিতে বাংলাদেশ বহির্বিশ্বে বড় ভূমিকা নিয়ামক শক্তি হিসেবে কাজ করছে। তুলনামূলক জনশক্তি পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ শ্রেণিভেদে কিংবা আভ্যন্তরিণ চাহিদার যুগ-উপযোগী অর্জনে আমরা অনেক পিছিয়ে। দেশের আন্তচাহিদা কিংবা বহির্বিশ্বে যোগান ঘাটতির অন্যতম কারণ ইংরেজি জানা থেকে বঞ্চিত হওয়া। কর্মের শ্রেণি বিন্যাস ভেদে ইংরেজি জানার বিকল্প নেই। সে পরিসংখ্যান থেকে অ—নেক দূরে আমাদের অবস্থান। সকল শ্রেণির, সকল বয়সের, সকল ধর্মের, কর্মের, বর্ণের প্রাথমিক থেকে সর্বোচ্চ স্তরে জানার শিক্ষা সহায়ক কোর্স নিয়ে ভেবেছেন কি কেউ?

সুধী পাঠক!
“আমরা শুরু থেকেই শুরু করি, শেষ না করে শেষ করি না।” আই.এল.টি ইংলিশ কেয়ার-এর এই শিক্ষা বান্ধব স্লোগান আর প্রতিপাদ্যের মহতি ব্যবস্থাপনার পৃষ্ঠপোষকতায় একজন শিক্ষাবান্ধব মানবের গল্প উপস্থাপন আমাদের প্রয়াস। নিঃসন্দেহে পাঠক পাঠ্যস্থ করে ক্ষান্ত হবেন না। সম্পৃক্ততার আলোকে আপনার চলমান জীবনের কাঙ্খিত অর্জন আই.এল.টি নামক প্রতিষ্ঠানটি ইংরেজি শিক্ষার সমৃদ্ধ পাঠদান করছে যথোপযোগী কারিকুলামে। একজন আলোকিত শিক্ষাবান্ধব উদ্যোক্তা জনাব মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দীন প্রতিষ্ঠা করেন আই.এল.টি নামক এই আলোকিত বাতিঘরটি। শত-শত ছাত্র-ছাত্রী বিভিন্ন বয়সের, বিভিন্ন পেশাজীবি, শ্রমজীবি, কর্মজীবি মানুষ স্ব-স্ব অবস্থানে নিজের অবস্থান পরিবর্তন-পরিবর্ধনে প্রয়োজন ইংরেজি দ্রুত বলা, পড়া ইত্যাদির সমন্বয়ে অর্জন তাগিদে শিক্ষা গ্রহণ করা অব্যাহত রেখেছে। এরই ধারাবাহিকতায় ব্যাপক সুনামের সাথে “ওরাল ক্লাস” শুদ্ধ উচ্চারণের ইংরেজি শিক্ষার কার্যক্রম চলমান রয়েছে। আই.এল.টি ব্যতিক্রমী শিক্ষা প্রদানে ২০১৭ নতুন বছর হতে চতুর্থ শ্রেণি থেকে এইচ.এস.সি ভর্তি চলমান থাকবে। ক্লাস ভিত্তিক পঞ্চম (পি.ই.সি.ই), অষ্টম (জে.এস.সি), এস.এস.সি এবং এইচ.এস.সির জন্য রয়েছে স্পেশাল শতভাগ সর্বোচ্চ নম্বর অর্জন করার পাঠদানমূলক ব্যবস্থাপনা । যে বিষয়গুলি শিক্ষার্থী ও অভিভাবক মহলে দৃষ্টি কেড়েছে তারমধ্যে বিশেষ করে টেক্স বুক, ব্যাকরণ, বেসিক ইংলিশ, ভোকাবিউলারি, পরীক্ষার খাতায় সুন্দরভাবে উপস্থাপন ইত্যাদি প্রণিদানযোগ্য। মৌলিক শিক্ষা ব্যাহত রোধে মূল পাঠ্য বইয়ের গুরুত্বারোপে “মুখস্থ নয়, বানানো শিখাই” স্লোগানটি নিয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে আ.এল.টি ইংলিশ কেয়ার। এ লক্ষ্যে আই.এল.টি ইংলিশ কেয়ার ক্লাসে লেখার বিষয়টিকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের সৃজনশীল মেধাকে শাণিত করে যুগান্তকারী দৃষ্টান্ত স্থাপন করছে প্রতিনিয়ত।
ইংরেজি কেবল একটি বিষয় নয়, এটি আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে সর্বোচ্চ ব্যবহৃত একটি গুরুত্বপূর্ণ ভাষাও। তাহলে, ইংরেজিকে এ+ এর গন্ডিতে আবদ্ধ না করে বরং এটিকে রপ্ত করতে হবে দক্ষতার সাথে। এই বিষয়ে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে গবেষণা এবং বাস্তবায়নের মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীদের অভূতপূর্ব উন্নতিসাধন করে চলছেন আই.এল.টি’র প্রধান পৃষ্ঠপোষক জনাব মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দীন। সামাজিক অবদানে তিনি এক নন্দিত উপস্থাপক। আলোকিত শিক্ষাজোন বলে খ্যাত চকবাজারের কলেজ রোডের হাকিম প্লাজায় তারই আলোকিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি অবস্থিত। সুবিশাল মনোরম পরিবেশে পাঠদান এই প্রতিষ্ঠানেকে অনন্য করে রেখেছে। তার নান্দনিক উচ্চারণ যা অনন্য দৃষ্টান্তে আই.এল.টি নামক প্রতিষ্ঠানটি সামাজিক ও জাতীয় অবদানে বিশেষ ভূমিকা রাখছে। এমনটি প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন সংশ্লিষ্ট সকল শিক্ষাপিপাষু শিক্ষাবান্ধব মহল। লেখক: কবি ও আবৃত্তিকার

Leave a Reply

%d bloggers like this: