‘অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফর বাতিল ছেলেমানুষি’

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ৩ নভেম্বর: বাংলাদেশে অস্ট্রেলিয়ার সফর বাতিলকে ছেলেমানুষি’ বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্বের সেরা স্পিনার অস্ট্রেলিয়ার শেন ওয়ার্ন। গতকাল বিকালে (নিউইয়র্ক সময়) ম্যাটহাটানের মেরিয়ট মাকুয়ের্স হোটেলে আয়োজন করা হয় এক সংবাদ সম্মেলনের। সংবাদ সম্মেলনে শেন ওয়ার্ন অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফর বাতিল প্রসঙ্গে বলেন, অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফর বাতিলের সিদ্ধান্ত ছিল সিলি বিষয়। অস্ট্রেলিয়ার সিদ্ধান্ত ছিল অনেকটা ছেলেমানুষি। sochinpicআমি আশা করছি আগামীতে অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ সফরে যাবে। অন্যদিকে ক্রিকেট বিশ্বের আরেক দিকপাল লিটল মাস্টার শচীন টেন্ডুলকার বলেন, বাংলাদেশের মানুষের ভালবাসা আমি কোন দিন ভুলতে পারবো না। বাংলাদেশের ক্রিকেট টিম সম্পর্কে বাঙালির প্রশ্নের জবাবে শচীন এবং শেন ওয়ার্নের মতামত জানতে চাইলে শেন ওয়ার্ন বলেন, ক্রিকেট খেলার জন্য চমৎকার জায়গা হচ্ছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ দলে এখন অনেক ওয়ান্ডারফুল প্লেয়ার রয়েছে। বাংলাদেশ ক্রিকেট টিম এখন চমৎকার এবং খুবই ভাল ক্রিকেট খেলছে। সর্বশেষ বিশ্বকাপ ক্রিকেটে তারা কোয়ার্টার ফাইনাল খেলেছে। বিশ্বের অনেক সেরা দলকে হারিয়েছে যোগ্য দল হিসাবেই। শেন ওয়ার্নের কথার সঙ্গে সুর মিলিয়ে শচীন টেন্ডুলকার বলেন, সম্প্রতি সময়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল খুবই ভাল খেলছে। বাংলাদেশ দলের সাকিব আল হাসানের মতো বিশ্ব মানের খেলোয়াড় রয়েছে। সাকিব এখন বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার তাতে কোন সন্দেহ নেই। সে এখন এক দিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও টপ ওয়ান অলরাউন্ডার। বাংলাদেশ যে ক্রিকেটে এগিয়ে যাচ্ছে তা আমি নিঃসংকোচে বলতে চাই। তাদের অগ্রগতি ডিভেন্ডার্স। অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট টিমের বাংলাদেশ সফর বাতিল প্রসঙ্গে ঠিকানার প্রশ্নের জবাবে শেন ওয়ার্ন বলেন, একজন ক্রিকেটার হিসাবে আমি মনে করি অস্ট্রেলিয়া টিমের বাংলাদেশ সফর বাতিল সেইমফুল। আমি মনে করি, অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট টিম সফরের জন্য ওয়ান্ডারফুল দেশ হচ্ছে বাংলাদেশ। কিন্তু বোর্ডের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে নিরাপত্তার কথা। আমি বোর্ডকে বলেছি, নিরাপত্তার বিষয়টি হচ্ছে সিলি বিষয়। অর্থাৎ অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশে না যাওয়ার বিষয়টি ছিলো ছেলেমানুষি সিদ্ধান্ত। আমি আশা প্রকাশ করছি আগামীতে অস্ট্রেলিয়া টিম বাংলাদেশে যাবে। এনার প্রশ্নের জবাবে শচীন টেন্ডুলকার বলেন, ২০১১ সালের বিশ্বকাপের কথা। আমরা খেলার একদিন আগে ঢাকা স্টেডিয়ামে অনুশীলন করছিলাম। পরদিন আমাদের ম্যাচ। অনুশীলনের সময় আমরা স্টেডিয়ামের বাইরে প্রচন্ড আওয়াজ শুনছিলাম। জানতে চাইলাম কি হচ্ছে বাইরে? আমরা ড্রেসিং রুমে চলে এলাম। আমাদের জানালো হলো ৪০ থেকে ৫০ হাজার ভক্ত আমাদের দেখার জন্য স্টেডিয়ামে এসেছে। কিন্তু তারা ঢুকতে পারেনি। খেলার দিনও বাংলাদেশের মানুষের সমর্থন ছিলো অফুরন্ত। বাংলাদেশের মানুষের এই ভালবাসা আমি কোন দিন ভুলতে পারবো না। বিশ্বের বরেণ্য এই দুই তারকা এখন আমেরিকায়। তারা আমেরিকায় তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে অংশ নেবেন নিউ ইয়র্ক, লস অ্যাঞ্জেলেস ও টেক্সাসে। তাদের সঙ্গে আরও অংশ নেবেন বিশ্বক্রিকেটের সাবেক আরও ২৬ জন তারকা। এএসবি কম্যুনিকেশনের আয়োজনে বিশ্বের ৮টি টেস্ট নেশন দেশের ২৮ জন সাবেক তারকা অংশ নেবেন এ ম্যাচগুলোতে। দুই দলের বিভিন্ন ২৮ জন খেলোয়াড়ের নেতৃত্ব দেবেন শচীন টেন্ডুলকার এবং শেন ওয়ার্ন। আমেরিকায় ক্রিকেট খেলাকে জনপ্রিয় করার লক্ষ্যেই এই উদ্যোগ নেয়া হয়। শেন ওয়ার্ন বলেন, বেইস বল ও বাস্কেট বলের দেশে আমরা ক্রিকেটকে জনপ্রিয় করতে চাই। তাই আমরা বিশ্বের সাবেক ২৮ জন খোলোয়াড় আমেরিকায় এসেছি। আমেরিকার তিনটি সিটি নিউইয়র্ক, লস অ্যাঞ্জেলেস এবং টেক্সাসে তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে অংশ নিচ্ছি। নিউইয়র্কে প্রথম টি টুয়ান্টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৭ নভেম্বর দুপুর ১টায় ফ্লাশিং-এর সিটি মাঠে। আমেরিকায় ক্রিকেটকে জনপ্রিয় করার জন্য এই উদ্যোগ অত্যন্ত ভাল। আমি এবং শচীন টেন্ডুলকার এবং বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়দের নিয়ে এই উদ্যোগে আমরা আশাবাদী বেইসবল ও বাস্কেট বলের দেশে ক্রিকেটও মানুষের হৃদয় জয় করবে। আমেরিকাকে আমরা ভালবাসি। শেন ওয়ার্নের পরপরই কথা বলতে শুরু করেন বিস্ময় বালক শচীন টেন্ডুলকার। তিনি বলেন, ক্রিকেট জনপ্রিয় করতে হলে ধৈর্য ও ভালবাসা প্রয়োজন। আমরা এখানে লংভার্সনের ক্রিকেট খেলতে পারবো না। শর্ট ভার্সনের ক্রিকেট খেলবো। আমরা তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলছি। আমরা ক্রিকেট থেকে অবসর নিলেও টি-২৪ খেলতে আমরা অভ্যস্ত। আমরা ক্রিকেটকে সারাবিশ্বে পৌঁছে দিতে চাই। সূত্র: শীর্ষ নিউজ

Leave a Reply

%d bloggers like this: