অগ্রিম কর (এটি) ব্যবস্থা চালু!

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১১ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার: আগামী ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে নতুন ভ্যাট আইনের আওতায় অগ্রিম ট্রেড ভ্যাটের (এটিভি) পরিবর্তে অগ্রিম কর (এটি) ব্যবস্থা চালু করা হচ্ছে। অর্থাৎ বর্তমানে যেসব পণ্যে ৫ শতাংশ এটিভি আরোপিত আছে, সেসব পণ্য আমদানিতে অগ্রিম কর দিতে হবে। অর্থ মন্ত্রণালয় ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। যুগান্তর
সূত্রগুলো জানায়, নানা সময় ব্যবসায়ীরা অগ্রিম ট্রেড ভ্যাটের (এটিভি) বিষয়ে উষ্মা প্রকাশ করেছেন। এটিভি ভ্যাট আইনের মূলনীতির পরিপন্থী। তাই নতুন আইনে এটিভি বাদ দিয়ে আগাম করের (এটি) বিধান রাখা হয়েছে। নতুন আইন প্রণয়নের সময় আগাম কর ৩ শতাংশ ছিল। এখন সেটিকে বাড়িয়ে ৫ শতাংশ করা হচ্ছে।
প্রসঙ্গত, আগামী অর্থবছরের রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ লাখ ২৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। এর মধ্যে আয়কর খাতের লক্ষ্য ১ লাখ ১৫ হাজার ৫৮৮ কোটি টাকা। ভ্যাট খাতে ১ লাখ ১৭ হাজার ৬৭১ কোটি টাকা। শুল্ক খাতে ৯২ হাজার ৩৪০ কোটি টাকা।
নতুন ভ্যাট আইনে ব্যবসায়ীদের স্বার্থে অনেক ছাড় থাকছে। বার্ষিক টার্নওভারের সীমা ৮০ লাখ থেকে বাড়িয়ে ৩ কোটি টাকা করা হচ্ছে। একই সঙ্গে টার্নওভার ট্যাক্স হারও বাড়ানো হচ্ছে। আগামী বাজেটে এ হার ১ শতাংশ বাড়িয়ে ৪ শতাংশ করা হতে পারে। বর্তমানে এ হার ৩ শতাংশ। ফলে ৩ কোটি টাকার বেশি যাদের টার্নওভার রয়েছে তাদের ১ শতাংশ বেশি হারে ভ্যাট দিতে হবে। সাধারণত বড় ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানগুলোরই ৩ কোটি টাকার বেশি টার্নওভার রয়েছে। এছাড়া ভ্যাট অব্যাহতির সীমা ৩০ লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫০ লাখ টাকা করা হচ্ছে। অর্থাৎ বছরে ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হলে ওই প্রতিষ্ঠানকে কোনো ভ্যাট দিতে হবে না। ভ্যাট হারেও ছাড় দেয়া হচ্ছে। নতুন আইনে ১৫ শতাংশের পরিবর্তে আরও ৪টি স্তর করা হয়েছে। ২, ৫, ৭.৫ ও ১০ শতাংশ হারে পৃথক স্তর করা হয়েছে। মূলত ট্যারিফ মূল্য আরোপিত সংবেদনশীল পণ্যের দাম স্থিতিশীল রাখতে আলাদা একটি প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে ২ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হবে। বর্তমানে উৎপাদন পর্যায়ে ৮৫টি পণ্যে ট্যারিফ মূল্য বহাল আছে। এর মধ্যে গুঁড়া দুধ, গুঁড়া মসলা, বিস্কুট, কেক, রুটি, আচার, টমেটো সস, ফলের জুস, এলপি গ্যাস, নিউজপ্রিন্ট, সব ধরনের কাগজ, এলইডি লাইট, টিউব লাইট, চশমা, সানগ্লাস, নির্মাণসামগ্রী যেমন রড, ইট রয়েছে। নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন হলে এসব পণ্যের ট্যারিফ মূল্য থাকবে না। অপ্রয়োজনীয় বাদ দিয়ে অল্প সংখ্যক পণ্য যেমন রড, ওষুধ ও পেট্রোলিয়ামের মতো সংবেদনশীল পণ্য রেখে বিশেষ প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে। ৮-১০ পণ্য এ প্রজ্ঞাপনের সুবিধা পাবে। অন্যদিকে পুরাতন আইনে যেসব পণ্য ও সেবা সংকুচিত ভিত্তিমূল্যে ভ্যাট দিত, তাদের জন্য ভ্যাট হার ৫ ও সাড়ে ৭ শতাংশ হচ্ছে।

অন্যদিকে দেশীয় শিল্পকে সুরক্ষা দেয়ার জন্য সম্পূরক শুল্কের তফসিল পরিবর্তন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। অর্থাৎ পুরাতন আইনের তফসিল বহাল থাকছে। নতুন আইনে সম্পূরক শুল্ক আরোপিত পণ্য সংখ্যা ব্যাপকভাবে হ্রাস করা হয়েছে। ২০১২ সালে ভ্যাট আইনে মাত্র ২৫৬টি পণ্যের ওপর সম্পূরক শুল্ক রাখা হয়। যদিও পরবর্তীতে ২০১৭ সালের বাজেটে এ তফসিল সংশোধন করে সম্পূরক শুল্ক আরোপিত পণ্য সংখ্যা বাড়ানো হয়। পুরাতন আইনে প্রায় ১ হাজার ৪৩০টি পণ্যের ওপর আমদানি পর্যায়ে সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা আছে।
যদিও ভ্যাটের আওতা বাড়ানোর জন্য মাঠপর্যায়ে ইলেকট্রনিক ক্যাশ রেজিস্ট্রার (ইসিআর) মেশিনের পরিবর্তে ইলেকট্রনিক ফিসক্যাল ডিভাইস (্ইএফডি) বসানো হবে। ইতিমধ্যেই টেন্ডার কাজ শেষ হয়েছে। প্রাথমিক পর্যায়ে ঢাকা ও চট্টগ্রামের বড় বড় বিপণিবিতান ও রেস্টুরেন্টে বিনামূল্যে ইএফডি মেশিন বসানো হবে। পর্যায়ক্রমে সারা দেশে ৯০ হাজার ইএফডি মেশিন বসানো হবে। এনবিআরের কর্মকর্তারা মনে করেন, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ইএফডি মেশিন বসানো গেলে ভ্যাট ফাঁকি বন্ধ হবে। এখন ইসিআর মেশিন টেম্পারিং করা যায়। কিন্তু ইএফডি মেশিনে সে সুযোগ নেই। কারণ ইএফডি মেশিনের বেচাকেনার সব তথ্য সরাসরি ভ্যাট অনলাইন প্রকল্পে রক্ষিত সার্ভারে জমা হবে। কেউ টেম্পারিং করতে চাইলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সে তথ্য কর্মকর্তারা দেখতে পারবেন। তিনি আরও বলেন, বর্তমানে অর্থনীতির আকার যে হারে বেড়েছে, পণ্য ও সেবা খাত থেকে সে হারে ভ্যাট আদায় করা যাচ্ছে না। সর্বত্র ইএফডি মেশিন বসানো গেলে ভ্যাট আদায়ে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আসবে।
যেসব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ইএফডি ব্যবহার বাধ্যতামূলক: আবাসিক হোটেল, রেস্তোরাঁ ও ফাস্টফুড শপ, মিষ্টান্ন ভাণ্ডার, আসবাবপত্রের বিক্রয় কেন্দ্র, পোশাক বিক্রির কেন্দ্র ও বুটিক শপ, বিউটি পার্লার, ইলেকট্রনিক ও ইলেকট্রিক্যাল গৃহস্থালি সামগ্রীর বিক্রয়কেন্দ্র, কমিউনিটি সেন্টার, অভিজাত শপিং সেন্টারের আওতাভুক্ত সব ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান, ডিপার্টমেন্টাল স্টোর, জেনারেল স্টোর ও সুপার শপ, বড় ও মাঝারি ব্যবসায়ী (পাইকারি ও খুচরা) প্রতিষ্ঠান, স্বর্ণকার ও রৌপ্যকার এবং স্বর্ণ-রৌপ্যের দোকানদার এবং স্বর্ণ পাইকারি ব্যবসায়ী। এ ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের যদি কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে ইএফডি মেশিন ব্যবহার না করে তাহলে শাস্তির বিধান রাখা হচ্ছে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: